রবিবার, ০২ অক্টোবর ২০২২, ০৮:০১ অপরাহ্ন
বিশেষ ঘোষণাঃ
• করোনাভাইরাস প্রতিরোধে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলুন, টিকা নিন। • গুজব নয়, সঠিক সংবাদ জানুন। • দেশের কিছু জেলা, উপজেলা, গুরুত্বপূর্ণ স্থান এবং বিশ্বের কয়েকটি দেশের গুরুত্বপূর্ণ শহরে (খালি থাকা সাপেক্ষে) প্রতিনিধি নিয়োগ দেয়া হবে। • আপনি কি কোন বিশ্ববিদ্যালয়ে 'ফিল্ম ও মিডিয়া, গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা' বিষয়ে পড়ছেন? বাংলাদেশ প্রতিবেদন আপনাকে দিচ্ছে 'ইন্টার্নশিপ'-এর সুযোগ। • আপনিও হতে পারেন সাংবাদিক! চলতি পথে নানা অসঙ্গতি, দুর্নীতি, কারো সফলতা বা যেকোনো ভিন্নধর্মী খবর (ছবি অথবা ভিডিও) পাঠাতে পারেন। • হটলাইনঃ +৮৮০ ১৯ ০৯ ৮৬ ২৬ ১৬ (হোয়াটসঅ্যাপ), • ই-মেইলঃ protibedonbd@gmail.com • গুগল, ফেসবুক ও ইউটিউবে আমাদের পেতে Bangladesh Protibedon লিখে সার্চ দিন।

জেলা পরিষদ নির্বাচন: মনোনয়নপত্র জমা দিলেন নাসরিন আক্তার

বাংলাদেশ প্রতিবেদন
প্রকাশকালঃ শুক্রবার, ১৬ সেপ্টেম্বর, ২০২২

জেলা পরিষদ নির্বাচন: মনোনয়নপত্র জমা দিলেন নাসরিন আক্তার।

ডেস্ক রিপোর্ট:

নীলফামারীর জেলা পরিষদ নির্বাচনে মাঠে নেমেছেন সাবেক ইটাখোলা ইউপি সদস্য নাসরিন আক্তার। ইটাখোলা ইউনিয়নের সাবেক এই সফল মহিলা সদস্য দু’দুবার সদর উপজেলা পরিষদের মহিলা ভাইস-চেয়ারম্যান পদে লড়েছেন। ভাগ্যের নির্মম পরিহাসের কারণে ব্যাপক জনপ্রিয়তার পরেও পরাজিত হয়েছে মাত্র কয়েক’শ ভোটে। জনপ্রিয় এই সবেক ইউপি সদস্য এবারের জেলা পরিষদ নির্বাচনে (নীলফামারী সদর, সৈয়দপুর, কিশোরগঞ্জ) উপজেলা নিয়ে সংরক্ষিত আসনের মহিলা সদস্য পদে মনোয়নপত্র দাখিল করেছেন। (১৪সেপ্টেম্বর) বুধবার দুপুরে জেলা নির্বাচন অফিসার মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর হোসেনের হাতে সংরক্ষিত আসনের মহিলা সদস্য পদের জন্য মনোয়নপত্র জমা দেন নাসরিন আক্তার।
জানা যায়, নাসরিন আক্তারের বাবা নজরুল ইসলাম প্রামাণিক ইটাখোলা ইউনিয়ন পরিষদের ১,২,৩ নং ওয়ার্ডে ১৯৭৩সাল থেকে টানা ৩০বছর সদস্য ছিলেন। বাবার বার্ধক্যতার কারণে ওই আসনে বড় মেয়ে নাসরিন আক্তাকে ভোট করার জন্য ও মানুষের সেবা করার জন্য নির্দেশ দেন নজরুল ইসলাম। পরে মেয়ে নাসরিন আক্তার বাবার আসনে সংরক্ষিত মহিলা সদস্য নির্বাচিত হন। নাসরিন আক্তারও টানা ৯বছর সফলভাবে দায়িত্ব পালন করে বেশ জয়প্রিয়তা এনেছে। পরে ২০০৯সালে তৃতীয় উপজেলা নির্বাচনে মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে ব্যাপক সাড়া ফেলেছে। প্রায় ৩৮ হাজার ভোট পেয়ে পরাজিত হয়েছে মাত্র কয়েক’শ ভোটে। তবুও নির্বাচনী হাল ছাড়েননি জয়প্রিয় এই নেত্রী। আবারোও ২০১৪সালে চতুর্থ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে ভাগ্যের কাছে পরাজিত হয়। তারপর থেকে পারিবারিক নানান সমস্যা নির্বাচনের হাল থামিয়ে দেয়। এবার জনপ্রিয় এই নেত্রী জেলা পরিষদ নির্বাচনে সংরক্ষিত মহিলা সদস্যের আসনের হাল ধরেছেন। শুধু নির্বাচনের হালে নয় জনপ্রিয় এই নেত্রী পাঠকদের মন যোগাতে ও সাধারণ মানুষকে বইয়ের প্রতি মনযোগি করতে স্থাপন করেছেন আশার আলো মহিলা পাঠাগার। এছাড়াও সমাজকে দারিদ্র মুক্ত করতে সমাজের অবহেলিত মহিলাদের কর্মমুখী করতে খুলেছেন মহিলা কল্যাণ সংস্থা।
নির্বাচন বিষয়ে নাসরিন আক্তার বলেন, বাবার নির্দেশে জনগণের সেবার হাল ধরেছি। বাবার বার্ধক্য জনিত কারণে ইটাখোলার জনগণ আমাকে বাবার আসনে সংরক্ষিত মহিলা সদস্য পদে নির্বাচিত করেছিল। তবে শুধু ইটাখোলারে নয় সারা উপজেলার মানুষের সেবা করার জন্য উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে দু’বার মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে লড়েছি। কিন্তু জনগণ আমাকে ব্যাপক সাড়া দিলেও ভাগ্যের কাছে হেরে গিয়েছি। তারপর বোনের মৃত্যুর দশ দিন পর বড় ভাই মারা যাওয়ায় নির্বাচন নিয়ে তেমন চিন্তা-ভাবনা না করলেও জনগণের স্বার্থে পাঠাগার ও মহিলা কল্যাণ সমিতি খুলেছি। এখানে প্রশিক্ষণের মাধ্যমে অসংখ্য অবহেলিত নারীর কর্মস্থানও হয়েছে। তবে বাবাকে দেয়া প্রতিশ্রুতির কথা বার বার মনে পড়ে। তাই জেলা পরিষদ নির্বাচনে নীলফামারীর-০২ আসনে সংরক্ষিত মহিলা সদস্য পদে বুধবার দুপুরে মনোনয়নপত্র জমা করেছি। তবে ইউপি চেয়ানম্যান ও সদস্যরা ব্যাপক সাড়া দিচ্ছে। যদি তারা আমাকে নির্বাচিত করে, তাহলে বাবাকে দেয়া প্রতিশ্রুতি জনগণের সেবা করা অক্ষরে অক্ষরে পালন করবো।

উল্লেখ্য,এছাড়াও ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী (১৫সেপ্টেম্বর) বৃহস্পতিবার মনোনয়ন পত্র দাখিলের শেষ দিনে চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বীতা করতে মনোনয়ন দাখিল করেন আওয়ামী লীগ দলীয় প্রার্থী মমতাজুল হক ও এবং স্বতন্ত্র প্রার্থী বীরমুক্তিযোদ্ধা জয়নাল আবেদীন। এছাড়াও সাধারণ সদস্য পদে ২৬ জন এবং সংরক্ষিত সদস্য পদে ১১জন মনোনয়ন দাখিল করেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ