রবিবার, ০২ অক্টোবর ২০২২, ০৬:১১ অপরাহ্ন
বিশেষ ঘোষণাঃ
• করোনাভাইরাস প্রতিরোধে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলুন, টিকা নিন। • গুজব নয়, সঠিক সংবাদ জানুন। • দেশের কিছু জেলা, উপজেলা, গুরুত্বপূর্ণ স্থান এবং বিশ্বের কয়েকটি দেশের গুরুত্বপূর্ণ শহরে (খালি থাকা সাপেক্ষে) প্রতিনিধি নিয়োগ দেয়া হবে। • আপনি কি কোন বিশ্ববিদ্যালয়ে 'ফিল্ম ও মিডিয়া, গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা' বিষয়ে পড়ছেন? বাংলাদেশ প্রতিবেদন আপনাকে দিচ্ছে 'ইন্টার্নশিপ'-এর সুযোগ। • আপনিও হতে পারেন সাংবাদিক! চলতি পথে নানা অসঙ্গতি, দুর্নীতি, কারো সফলতা বা যেকোনো ভিন্নধর্মী খবর (ছবি অথবা ভিডিও) পাঠাতে পারেন। • হটলাইনঃ +৮৮০ ১৯ ০৯ ৮৬ ২৬ ১৬ (হোয়াটসঅ্যাপ), • ই-মেইলঃ protibedonbd@gmail.com • গুগল, ফেসবুক ও ইউটিউবে আমাদের পেতে Bangladesh Protibedon লিখে সার্চ দিন।

স্বেচ্ছাসেবকলীগের কমিটিতে পদ বানিজ্যের অভিযোগ, পদত্যাগের হিড়িক

বাংলাদেশ প্রতিবেদন
প্রকাশকালঃ শুক্রবার, ৯ সেপ্টেম্বর, ২০২২

স্বেচ্ছাসেবকলীগের কমিটিতে পদ বানিজ্যের অভিযোগ, পদত্যাগের হিড়িক

স্টাফ রিপোর্টার: সম্মেলন হওয়ার দীর্ঘ ২ বছর ৯ মাস পরে গত ৭ সেপ্টেম্বর রোজ বুধবার ঢাকা মহানগর দক্ষিণ স্বেচ্ছাসেবক লীগ এর পুর্নাঙ্গ কমিটি ঘোষণার পর থেকেই নেতাকর্মীদের মাঝে ক্ষোভ বিরাজ করছে। এই কমিটিতে আওয়ামীলীগ থেকে বহিষ্কৃত, সরকারি চাকুরিজীবী, সন্ত্রাসী, চাদাবাজ, ক্যাসিনো ব্যাবসায়ী পরিবারের সদস্য, আদম ব্যবসা করে মানুষকে প্রতারণার অভিযোগে অভিযুক্তদের প্রাধান্য দেওয়া হয়েছে।

সাধারণ সম্পাদক তারিক সাঈদের বিরুদ্ধে অর্থের বিনিময়ে পদ বন্টন করেছেন বলে সরাসরি জোড় অভিযোগ করেছেন তারই অনুসারী নেতাকর্মীরা। তারিক সাঈদ যাদেরকে কমিটিতে রেখেছেন প্রত্যেককেই কমপক্ষে ৪ লক্ষ টাকা দিতে হয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন খোদ পদ পাওয়া নেতারাই। সাবেক ও বর্তমান নেতাকর্মীদের সিংহভাগ অংশই এই কমিটি মেনে নিতে পারছেনা। ইতিমধ্যেই অনেকে নিজেদের ফেসবুক প্রোফাইলে পোস্ট দিয়ে পদত্যাগ করেছেন। তাদের অভিযোগ অর্থের বিনিময়ে অযোগ্য ও কোনদিন রাজনীতি না করা ব্যক্তিগত কর্মীদের পুর্নাঙ্গ কমিটিতে জায়গা দিয়ে সাবেক ত্যাগী ও পরিক্ষীত আদর্শবান নেতাদের বাদ দেওয়া হয়েছে। এরমধ্যে সাধারণ সম্পাদক গ্রুপের ভিতর গুরুতর অভিযোগ আছে সদ্যঘোষিত সহ সভাপতি আজাদ খান বিপ্লব, সাংগঠনিক সম্পাদক মোঃ লিটন মিয়া, অর্থ সম্পাদক আব্দুর রায়হান এর বিরুদ্ধে। এরা কেউই এর আগে রাজনীতির সাথে জড়িত ছিল বলে কোন প্রমাণ নাই। আজাদ খান বিপ্লব সাইঈদকে গাড়ি দিয়ে সহযোগিতা করেছেন, লিটন মিয়া বাসায় বাজার করে দিতেন, আব্দুর রায়হান সরকারি কর্মকর্তা সোনালী ব্যাংক এ কর্মরত।

এছাড়া সভাপতি গ্রুপের সহসভাপতি মাসুদ রানা, গাজী সুমন, হাজী রফিকুল ইসলামের বিরুদ্ধে বিভিন্ন অভিযোগ রয়েছে। যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক মেহেদী হাসান স্বপন প্রায় সাত বছর রাজনীতিতে অনুপস্থিত থেকে বেসরকারি একটি প্রতিষ্ঠান এ চাকরিরত ছিলেন। সাংগঠনিক সম্পাদক এমরান সালেহ প্রিন্স এর বিরুদ্ধে আদম ব্যবসায় প্রতারণার একাধিক অভিযোগ রয়েছে। সাংগঠনিক সম্পাদক হাসিব উদ্দিন রশি ও তার বাবার বিরুদ্ধে রয়েছে কলাবাগান ক্লাব ক্যাসিনো কান্ডের অভিযোগ।

সাবেক সম্পাদক আজিজ ব্যাপারী ফেসবুকে পোস্ট দিয়ে অভিযোগ করে বলেন ওনার কাছ থেকে সাধারণ সম্পাদক তারিক সাঈদ ৪ লাখ টাকা নিয়েছে কিন্তু কোন পদে রাখেনি, একই অভিযোগ করে সদ্যঘোষিত কমিটির সদস্য রিশাদ আহম্মেদ রুশদী ফেসবুকে নিজ প্রোফাইল এ পোস্ট দিয়ে পদত্যাগ করেছেন। আরও অনেকেই তাদের পদবী প্রত্যাখান করেছেন এবং জানিয়েছেন আফম বাহাউদ্দিন নাসিম এর সাথে দেখা করার পরে পদত্যাগ করবেন। অনেকেই তাদের শুভাকাঙ্ক্ষীদের অভিনন্দন জানাতে নিষেধ করে দিয়েছেন। অনেককে ব্যক্তিগত আক্রোশে বেইজ্জতি করার জন্য পদাবনতি দিয়ে অপমানিত করা হয়েছে। সাবেক কমিটির সহসভাপতিদের একজনকেও নতুন কমিটিতে স্থান দেওয়া হয়নি।

সাংগঠনিক সম্পাদকদের ভিতর সহসভাপতি পদে স্থান পেয়েছেন একজন। প্রভাবশালী সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক আহমদউল্লাহ পপিকে স্থান দেয়নি নতুন কমিটিতে। সাবেক প্রভাবশালী সম্পাদক সম্পাদক আজিজ ব্যাপারী, মোঃ হিমু, শাহীনুর রহমান শাহীন সহ অনেককেই নবগঠিত কমিটিতে রাখা হয়নাই। সাবেক সদস্যদের ৭০ ভাগ কর্মীকেই বাদ দেওয়া হয়েছে। সাবেক সম্পাদক দের মধ্যে মুফতি আজিজুল হক, আইয়ুব আলী, কে এম আরমান, প্রবল দত্ত, নুরুল হক কে পদাবনতি দিয়ে সদস্য করা হয়েছে। তাও ১৫, ১৬, ২১, ২৯, ৪৪ নম্বরে অনেক জুনিয়র অরাজনৈতিক ছেলেদের নিচে। সাবেক বনও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক মুফতি আজিজুল হক ক্ষোভের সহিত বলেন সৃষ্টিলগ্ন থেকে সংগঠন করেছি, দায়িত্ব পালন করেছি ওয়ার্ড সভাপতি ও মহানগর সম্পাদক হিসেবে অথচ আজকে আমাকে অনেক জুনিয়র ছেলেদের নিচে ২৯ নং সদস্য করে চরমভাবে অপমানিত করেছে। অপেক্ষা করছি দায়িত্বশীল নেতাদের সাংগঠনিকভাবে ও আসমান থেকে বিচারের।

এছাড়াও নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বর্তমান ও সাবেক কমিটির অনেকেই অভিযোগ করেছেন সংগঠনের পেছনে অনেক ত্যাগ, শ্রম দেওয়ার পরেও শুধুমাত্র টাকা না দেওয়ার কারনে অবমূল্যায়ন করা হয়েছে। তারা ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন শুধুমাত্র টাকাই যদি সব হয় তাহলে বছরের পর বছর সংগঠন করে লাভ কি? তবে শিশু ও পরিবার কল্যান বিষয়ক সম্পাদক রুবাবা নুর জানান বঞ্চিত ও অবমূল্যায়িত নেতা কর্মীরা তাদের সাংগঠনিক দায়িত্বপ্রাপ্ত নেতা বাহাউদ্দীন নাসিম ও সংগঠন এর অভিভাবক গনপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে লিখিত অভিযোগ প্রদান করবেন।

এ ব্যাপারে নগর সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের সাথে যোগাযোগ করার চেষ্টা করেও তাদেরকে পাওয়া যায়নি। সংগঠন এর ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মেজবাউল হোসেন সাচ্চু বলেন – অভিযোগের ভিত্তিতে আমরা যাচাই বাছাই করে ব্যবস্থা নিব।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ