বৃহস্পতিবার, ১১ অগাস্ট ২০২২, ১০:৩৮ পূর্বাহ্ন
বিশেষ ঘোষণাঃ
• করোনাভাইরাস প্রতিরোধে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলুন, টিকা নিন। • গুজব নয়, সঠিক সংবাদ জানুন। • দেশের কিছু জেলা, উপজেলা, গুরুত্বপূর্ণ স্থান এবং বিশ্বের কয়েকটি দেশের গুরুত্বপূর্ণ শহরে (খালি থাকা সাপেক্ষে) প্রতিনিধি নিয়োগ দেয়া হবে। • আপনি কি কোন বিশ্ববিদ্যালয়ে 'ফিল্ম ও মিডিয়া, গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা' বিষয়ে পড়ছেন? বাংলাদেশ প্রতিবেদন আপনাকে দিচ্ছে 'ইন্টার্নশিপ'-এর সুযোগ। • আপনিও হতে পারেন সাংবাদিক! চলতি পথে নানা অসঙ্গতি, দুর্নীতি, কারো সফলতা বা যেকোনো ভিন্নধর্মী খবর (ছবি অথবা ভিডিও) পাঠাতে পারেন। • হটলাইনঃ +৮৮০ ১৯ ০৯ ৮৬ ২৬ ১৬ (হোয়াটসঅ্যাপ), • ই-মেইলঃ protibedonbd@gmail.com • গুগল, ফেসবুক ও ইউটিউবে আমাদের পেতে Bangladesh Protibedon লিখে সার্চ দিন।

ভোলায় পুলিশ-বিএনপির সংঘর্ষে নিহত ১ পুলিশসহ আহত শতাধিক; আটক ১১

বাংলাদেশ প্রতিবেদন
প্রকাশকালঃ রবিবার, ৩১ জুলাই, ২০২২

ভোলায় পুলিশ-বিএনপির সংঘর্ষে নিহত ১ পুলিশসহ আহত শতাধিক; আটক ১১।

স্টাফ রিপোর্টারঃ

ভোলায় বিএনপির কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে তেল গ্যাসের মূল্যবৃদ্ধি এবং লোড শেডিংয়ের প্রতিবাদে বিক্ষোভ সমাবেশ করতে গেলে পুলিশের সাথে বিএনপির সংঘর্ষ হয়। এসময় উভয় পক্ষের মধ্যে ব্যাপক ইট পাটকেল এবং পুলিশ টিআর সেল ও রাবার বুলেট নিক্ষেপ করেছে। সংঘর্ষে ১০ পুলিশসহ বিএনপির অর্ধশতাধিক নেতাকর্মী আহত হয়েছে।

সংঘর্ষ চলাকালে গুলি বৃদ্ধ হয়ে মো. আব্দুর রহিম (৩৫) নামের সদর থানা স্বেচ্ছাসেবক দলের এক সদস্য নিহত হয়েছে। এছাড়াও গুরুতর আহত প্রায় ৫-৬ জনকে উন্নত চিকিৎসার জন্য বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেলে পাঠানো হয়েছে। আজ রবিবার বেলা সাড়ে ১১টা থেকে দুপুর সাড়ে ১২টা পর্যন্ত এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এসময় শহরের মহাজনপট্টি জেলা বিএনপির কার্যালয়ের সামনে রণক্ষেত্রে পরিনত হয়।

এ ঘটনায় জেলা বিএনপির সভাপতি আলহাজ্ব গোলাম নবী আলমগীরের তার বাসভবনে দুপুর ২টার দিকে সংবাদ সম্মেলনে দাবি করেন, বেলা ১১টার দিকে কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসেবে তেল গ্যাসের মূল্যবৃদ্ধি এবং লোড শেডিংয়ের প্রতিবাদে জেলা বিএনপির কার্যালয়ের সামনে এক প্রতিবাদ সভা করেন তাঁরা। সভা শেষে দলীয় নেতাকর্মীরা একটি বিক্ষোভ মিছিল বের করার সময় পুলিশ প্রথমে তাদের ওপর লাঠিচার্জ করে। পরে এক পর্যায়ে পুলিশ তাদের ওপর এলোপাতাড়ি রাবার বুলেট, টিয়ারসেল ও গুলি ছুড়তে থাকে। এতে জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক হারুন অর রশিদ ট্রুম্যান, যুগ্ম সম্পাদক হুমায়ূন কবির শোপানসহ প্রায় শতাধিক নেতাকর্মী আহত হয়। এর মধ্যে প্রায় ৩০জনের অবস্থা গুরুতর। তারা ভোলা সদর হাসপাতাল ও বরিশালে চিকিৎসাধীন রয়েছে।

পুলিশের ছোড়া গুলিতে আব্দুর রহিম নামের সদর থানা স্বেচ্ছাসেবক দলের এক সদস্য নিহত হয়েছে। ভোলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) মোহাম্মদ ফরহাদ সরদার জানান, সকালের দিকে জেলা বিএনপির কার্যালয়ের সামনে সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।
পরে তারা সড়ক বন্ধ করে বিক্ষোভ কর্মসূচি পালন করলে পুলিশ তাদেরকে সড়ক বন্ধ করতে নিষেধ করে। এর পরও তারা সড়ক বন্ধ করে রাস্ট্রবিরোধী বিভিন্ন স্লোগান দিতে থাকে এবং তাদের মিছিলের মধ্য থেকে পুলিশকে লক্ষ করে ইটপাটকেল নিক্ষেপ করে।
পুলিশ আত্মরক্ষার্তে প্রথমে লাঠিচার্জ করে। এতেও তারা ক্ষান্ত না হওয়ায় পুলিশ টিয়ারসেল নিক্ষেপ করে। এ ঘটনায় পুলিশের অন্তত ১০ সদস্য আহত হয়েছে। এবং ঘটনাস্থল থেকে ১১জনকে আটক করা হয়েছে।

 


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ