শনিবার, ২৮ মে ২০২২, ০১:৪৫ পূর্বাহ্ন
বিশেষ ঘোষণাঃ
• করোনাভাইরাস প্রতিরোধে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলুন, টিকা নিন। • গুজব নয়, সঠিক সংবাদ জানুন। • দেশের কিছু জেলা, উপজেলা, গুরুত্বপূর্ণ স্থান এবং বিশ্বের কয়েকটি দেশের গুরুত্বপূর্ণ শহরে (খালি থাকা সাপেক্ষে) প্রতিনিধি নিয়োগ দেয়া হবে। • আপনি কি কোন বিশ্ববিদ্যালয়ে 'ফিল্ম ও মিডিয়া, গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা' বিষয়ে পড়ছেন? বাংলাদেশ প্রতিবেদন আপনাকে দিচ্ছে 'ইন্টার্নশিপ'-এর সুযোগ। • আপনিও হতে পারেন সাংবাদিক! চলতি পথে নানা অসঙ্গতি, দুর্নীতি, কারো সফলতা বা যেকোনো ভিন্নধর্মী খবর (ছবি অথবা ভিডিও) পাঠাতে পারেন। • হটলাইনঃ +৮৮০ ১৯ ০৯ ৮৬ ২৬ ১৬ (হোয়াটসঅ্যাপ), • ই-মেইলঃ protibedonbd@gmail.com • গুগল, ফেসবুক ও ইউটিউবে আমাদের পেতে Bangladesh Protibedon লিখে সার্চ দিন।

গাজীপুরে সয়াবিন তেল জব্দ ৭১৫৮ লিটার

স্টাফ রিপোর্টার
প্রকাশকালঃ বৃহস্পতিবার, ১২ মে, ২০২২

গাজীপুর সিটি করপোরেশনের বোর্ডবাজার এলাকার একটি গুদাম থেকে অবৈধভাবে মজুতকৃত ২ হাজার ৫৮ লিটার সয়াবিন তেল জব্দ করেছে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর। এসময় গুদাম মালিককে দুই লাখ টাকা জরিমানা করা হয়। এ ছাড়াও বোর্ডবাজার এলাকায় আরেকটি মার্কেটের আরপি ট্রেডার্স নামে একটি প্রতিষ্ঠানে অভিযান চালিয়ে গোডাউন থেকে ৫ হাজার ১০০ লিটার খোলা তেল জব্দ করা হয়।

মঙ্গলবার (১০ মে) দুপুরে বোর্ড বাজারের মনির ট্রেডার্স ও মেসার্স আর পি ট্রেডার্সের গুদামে এ অভিযান চালানো হয়।

ভোক্তা অধিদপ্তর গাজীপুরের সহকারী পরিচালক (অতিরিক্ত দায়িত্ব) আব্দুল জব্বার মণ্ডল বলেন, অবৈধভাবে সয়াবিন তেল মজুতের মাধ্যমে কৃত্রিম সংকট সৃষ্টির অভিযোগে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে বোর্ডবাজার এলাকায় মান্নান টাওয়ারে অবস্থিত মেসার্স মনির জেনারেল স্টোরে অভিযান পরিচালনা করা হয়। দোকান মালিক তার গুদামে এক লিটার, দুই লিটার ও পাঁচ লিটার পরিমাণের বোতলজাত দুই হাজার ৫৮ লিটার সয়াবিন তেল অবৈধভাবে মজুত করে রেখেছিলেন।  এসব তেল ঈদের আগে কম দামে ক্রয় করে মজুদ করে রাখা হয়েছিল অতিরিক্ত মুনাফায় বিক্রি করার উদ্দেশ্যে। বাজারে সংকট তৈরি করে দোকান মালিক বর্তমান বেশি মূল্যে বিক্রি করছিলেন। এ কারণে দোকান মালিক মনির হোসেনকে দুই লাখ টাকা জরিমানা করা হয়েছে। এ ছাড়াও বোর্ডবাজার এলাকায় আরপি ট্রেডার্স নামে আরো একটি প্রতিষ্ঠানে অভিযান চালিয়ে গোডাউন থেকে ৫ হাজার ১০০ লিটার খোলা তেল জব্দ করা হয়।

তিনি আরো জানান, জব্দকৃত খোলা তেলগুলো তাদের উপস্থিতিতে স্থানীয়দের মধ্যে বিক্রি করা হয়। এ ছাড়াও ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের এই অভিযান নিয়মিত পরিচালনা করা হবে।

ওই অভিযানে গাজীপুর মেট্রোপলিটন পুলিশ ও জেলা ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের কর্মকর্তারা অংশ নেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ