শুক্রবার, ২৭ মে ২০২২, ০৭:৩৯ অপরাহ্ন
বিশেষ ঘোষণাঃ
• করোনাভাইরাস প্রতিরোধে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলুন, টিকা নিন। • গুজব নয়, সঠিক সংবাদ জানুন। • দেশের কিছু জেলা, উপজেলা, গুরুত্বপূর্ণ স্থান এবং বিশ্বের কয়েকটি দেশের গুরুত্বপূর্ণ শহরে (খালি থাকা সাপেক্ষে) প্রতিনিধি নিয়োগ দেয়া হবে। • আপনি কি কোন বিশ্ববিদ্যালয়ে 'ফিল্ম ও মিডিয়া, গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা' বিষয়ে পড়ছেন? বাংলাদেশ প্রতিবেদন আপনাকে দিচ্ছে 'ইন্টার্নশিপ'-এর সুযোগ। • আপনিও হতে পারেন সাংবাদিক! চলতি পথে নানা অসঙ্গতি, দুর্নীতি, কারো সফলতা বা যেকোনো ভিন্নধর্মী খবর (ছবি অথবা ভিডিও) পাঠাতে পারেন। • হটলাইনঃ +৮৮০ ১৯ ০৯ ৮৬ ২৬ ১৬ (হোয়াটসঅ্যাপ), • ই-মেইলঃ protibedonbd@gmail.com • গুগল, ফেসবুক ও ইউটিউবে আমাদের পেতে Bangladesh Protibedon লিখে সার্চ দিন।

ক্রিকেটার রুবেলকে নিয়ে স্মৃতিচারণ

মোহাম্মদ বিল্লাল হোসেন
প্রকাশকালঃ শনিবার, ২৩ এপ্রিল, ২০২২
ক্রিকেটার রুবেলকে নিয়ে স্মৃতিচারণ

পর্ব-১

ক্রিকেটার রুবেলকে নিয়ে স্মৃতিচারণ

আমরা ২০০০-২০০১ সেশনে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ইতিহাস বিভাগে ভর্তি হই। ২০০১ সালের জানুয়ারিতে আমাদের ক্লাস শুরু হয়। ক্লাস শুরুর কিছুদিন পর নবীনবরণ অনুষ্ঠান। নবীনবরণে প্রথম আমি রুবেলকে দেখলাম। স্টেজে কী একটা পারফর্ম করলো, শুধু মনে পড়ে বিএমডব্লিউ গাড়ির কথা (আমি যদি ভুল না করে থাকি)। পারফর্মের একপর্যায়ে রুবেলের কাছে কেউ একজন বিএমডব্লিউ গাড়ির বায়না ধরেছে। কী অসাধারণ ভঙ্গিমায় রুবেল তার রিপ্লাই দিয়েছে! আমরা মুগ্ধ হয়ে রুবেলের পারফর্ম দেখলাম। তার ফিটনেস, স্মার্টনেস সত্যি অনন্য ছিল।

নবীণবরণের পর তার ব্যাপারে আমার আগ্রহ তৈরি হলো, আমি নিজেই তাকে জিজ্ঞাসা করলাম তোমার কোন হলে এ্যাটাসমেন্ট? বললো- সলিমুল্লাহ হলে। এরই মধ্যে আমি সলিমুল্লাহ মুসলিম হলে (সংক্ষেপে এস এম হল) উঠে গিয়েছি। নিজের কাছে ভালো লাগছিল যে, রুবেলকে হলে পাওয়া যাবে। আমি উঠলাম ৩১ নং কক্ষে আর রুবেল উঠলো ২৯ নং কক্ষে। কক্ষ দুইটি পাশাপাশি। এস এম হলে বিজোড় নাম্বার নিচ তলায় আর জোড় নাম্বার দোতলায়। পাশাপাশি কক্ষে ৫ বছর হলে ছিলাম।

এই সুঠাম দেহের স্মার্ট মানুষটা মনের দিক থেকে এত অনন্য, অসাধারণ ছিল যে, আমাদের ক্লাসমেট বন্ধুদের মধ্যে দ্বিতীয়জন কাউকে তেমন পাইনি। সত্যিকার ”ভালো মনের মানুষ” বলতে যা বুঝায় রুবেল ঠিক তাই ছিল। একে একে আমরা ইতিহাস বিভাগের ক্লাসমেটদের মধ্যে রুবেল, বিলাল, মাসুদ, বুলবুল, হায়দার, শাহীন, সুমন হলে উঠলাম। রণি (বর্তমানে আমার কলিগ) এস এম হলে এ্যাটসমেন্ট থাকলেও হলে উঠেনি।
ধীরে ধীরে রুবেলের সাথে আমার ভালো লাগা, এবং বন্ধুত্ব গাঢ় হয়েছে। ২০০১ থেকে ২০২২ পর্যন্ত রুবেলকে বন্ধু হিসেবে পেয়ে মহান রবের কাছে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি। (১৯/০৪/২০২২) জানাজা পড়ে রুবেলকে যখন দেখলাম, মনে হলো ক্লান্তিহীন এক স্বাভাবিক ঘুমের মধ্যে। চেহারার মধ্যে তিন বছরের অসুস্থ্যতার কোন ছাপ নাই।

মনে হলো, গত তিন বছরের রোগের যন্ত্রনার মধ্য দিয়ে আল্লাহ রাব্বুল আলামিন রুবেলের দুনিয়ার জীবনের ছোটখাট ভুল-ত্রুটি ক্ষমা করে তাকে পরিচ্ছন্ন করে দিয়েছেন। আল্লাহ রুবেলকে জান্নাতের মেহমান বানিয়ে নেন এই দোয়া করি।

রুবেলের সাথে ক্লাসমেট হিসেবে সম্পর্ক, আবার তার সাথে আমার ব্যক্তিগত সম্পর্ক গড়ে উঠে। রুবেল ব্যক্তিগত ও পারিবারিক নানান বিষয়ে আমার সাথে পরামর্শ করতো, এবং আমিও করতাম। বিশ^বিদ্যালয়ে হলের জীবন শেষ করে আমরা দুইজনই মোহাম্মদপুরে বাসা নেই। রুবেল উঠলো নুরজাহান রোডে। আমি কাজি নজরুল ইসলাম রোডে। প্রায় রুবেল আমাকে তার বাসায় নিয়ে যেতো। এরপর মোহাম্মদপুরের জাপান সিটি গার্ডেনে একটু বড় বাসা নিয়ে রুবেল তার বাবা, মা এবং ছোট বোনকে বাসায় নিয়ে আসে। পরিবারের প্রতি বিশেষ করে বাবা-মায়ের প্রতি রুবেলের দায়িত্বের জায়গায় কোন ঘাটতি দেখিনি।

এটা মনে হয় ২০১১/১২ সালের দিকে হবে। রুবেল ফোন করলো বেলাল তুমি কোথায়? তোমার সাথে পরামর্শ করা প্রয়োজন। আমার মায়ের ব্রেস্ট টিউমার অপারেশন করতে হবে। পরে রুবেল আর আমি লালমাটিয়া একটি ক্লিনিকে যাই। ওখানকার একজন ডাক্তার সম্পর্কে আমার পূর্ব থেকে জানাশোনা ছিল। সেখানে অপারেশন সফল হয়, আলহামদুলিল্লাহ।

২০২০ সালে রুবেলের বাবা যখন অসুস্থ হয়ে ঢাকা সিএমএইচে ভর্তি হলো তখন রুবেল নিজেও অসুস্থ্য। কিন্তু বাবাকে সুস্থ্য করার জন্য তার চেষ্টা, বাবাকে হসপিটালে সময় দেয়া, তার বাবাকে ফিল করার বিষয় চোখে পড়ার মতো ছিল। আমি দেখেছি নিজের শরীরের দিকে খেয়াল না করে বাবাকে সুস্থ করার জন্য তার পেরেশানি।

তার বাবার মৃত্যূর পর (২০২০) রুবেল একদিন আমাকে বলতেছে, দেখ বেলাল, আমার বাবার জীবনের চাহিদা অনেক কম ছিল। মৃত্যূর পর তার যাতে গার্ড অফ অনার হয়, এটি তিনি বলেছেন। তিনিতো মুক্তিযোদ্ধা ছিলেন, গার্ড অফ অনার হবে এটাই স্বাভাবিক। রুবেলের বাবা খুবই সহজ সরল মানুষ ছিলেন। আল্লাহ আংকেলকে জান্নাতের মেহমান বানিয়ে নিন, এই দোয়া করি।

খেলাধুলার মাধ্যমে আমাদের বন্ধুদের মধ্যে সবার আগে রুবেল কোটিপতি হয়েছে। কিন্তু কোটিপতি হওয়ার কারণে তার স্বভাব-চরিত্রের মধ্যে দাম্ভিকতা আসেনি, মানবিকতা হারায়নি। তার জীবনের মানবিক দিকগুলো থেকে আমাদের শিক্ষা নেয়ার আছে। সময় পেলে তার জীবনের গুরুত্বপূর্ণ কিছু বিষয় নিয়ে লিখব, ইনশাআল্লাহ। চলবে…

মোহাম্মদপুর
২২ এপ্রিল ২০২২


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ