শনিবার, ০১ অক্টোবর ২০২২, ০২:৩৭ অপরাহ্ন
বিশেষ ঘোষণাঃ
• করোনাভাইরাস প্রতিরোধে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলুন, টিকা নিন। • গুজব নয়, সঠিক সংবাদ জানুন। • দেশের কিছু জেলা, উপজেলা, গুরুত্বপূর্ণ স্থান এবং বিশ্বের কয়েকটি দেশের গুরুত্বপূর্ণ শহরে (খালি থাকা সাপেক্ষে) প্রতিনিধি নিয়োগ দেয়া হবে। • আপনি কি কোন বিশ্ববিদ্যালয়ে 'ফিল্ম ও মিডিয়া, গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা' বিষয়ে পড়ছেন? বাংলাদেশ প্রতিবেদন আপনাকে দিচ্ছে 'ইন্টার্নশিপ'-এর সুযোগ। • আপনিও হতে পারেন সাংবাদিক! চলতি পথে নানা অসঙ্গতি, দুর্নীতি, কারো সফলতা বা যেকোনো ভিন্নধর্মী খবর (ছবি অথবা ভিডিও) পাঠাতে পারেন। • হটলাইনঃ +৮৮০ ১৯ ০৯ ৮৬ ২৬ ১৬ (হোয়াটসঅ্যাপ), • ই-মেইলঃ protibedonbd@gmail.com • গুগল, ফেসবুক ও ইউটিউবে আমাদের পেতে Bangladesh Protibedon লিখে সার্চ দিন।

তাহিরপুরে হাওরের বাঁধে বাঁধে উপজেলা চেয়ারম্যান বাবুল

বাংলাদেশ প্রতিবেদন
প্রকাশকালঃ রবিবার, ১০ এপ্রিল, ২০২২

তাহিরপুরে হাওরের বাঁধে বাঁধে উপজেলা চেয়ারম্যান বাবুল।

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি:

সুনামগঞ্জের তাহিরপুর উপজেলার দিনরাত পরিশ্রম করে প্রতিটি হাওরের বাধঁ বাধেঁ কৃষকদের সাথে নিয়ে কাজ করছেন উপজেলা চেয়ারম্যান বাবু করুনা সিন্ধু চৌধুরী বাবুল।

যখনি কোন হাওরের বাধের খারাপ খবর আশে তখনি দ্রুত গতিতে ছুটে যান তাহিরপুর উপজেলার জননন্দিত উপজেলা চেয়ারম্যান বাবু করুনা সিন্ধু চৌধুরী বাবুল তিনি বাঁধে গিযে হাওর পাড়ের কৃষকদের উৎসাহিত করেন বাঁধ রক্ষার জন্য, উনার উপস্তিতি দেখে কৃষকদের মনে উৎসাহ জাগে তারা দল বেদে বাঁধে কাজ করতে আসে।
পাহাড়ি ঢলে ও বৃষ্টিতে অস্বাভাবিক ভাবে নদীতে পানি বৃদ্ধি হওয়ায় হুমখির মুখে পড়েছে জেলার একাধিক হাওরের বোরো ফসল রক্ষা বাঁধ। গত দুদিন বৃষ্টি না হওয়ায় নদীর পানি কমতে শুরু করলেও দুশ্চিন্তা কমছে না হাওর পাড়ের কৃষকদের। ইতি মধ্যে গত কয়েক দিনে ফসল রক্ষা বাঁধ ভেঙে টাংগুয়ার হাওর,এরালিয়াকোনা সহ তলিয়ে গেছে কয়েকটি হাওর।
নদীতে পানি বৃদ্ধি না হলেও বিভিন্ন হাওরের কিছু বাঁধ ধ্বসে হুমকিতে রয়েছে,আবার কিছু বাধের নিচ দিযে চুয়ে চুয়ে হাওরের ভিতরে পানি প্রবেশ করছে।
শনির হাওরের নান্টুখালি, লালুর গোয়ালা, আম্মকখালি,বীর নগর বাধ, মাঠিয়ান হাওরের আনন্দ নগর পঙ্খির খাল,রতন শ্রী পশ্চিমের বাধ,আলমখালি,বড়দল মেশিনবাড়ি,মাটিয়ানের কুড়ি,মহালিয়া, হাওর,বাঘমারা,দরোন,আইন্না খলমা,পাটাবুকা সামনের কুড়ি,আরও অনেক ছোট বড় বাধ।

মাটিয়ান হাওর পাড়ের কৃষক জালাল উদ্দীন বলেন নদীতে কিছুটা পানি কমলেও বিভিন্ন বাঁধ ধ্বসে যাচ্ছে কারন পিআইসির কাজের মান ভালো ছিলনা, তারা বাঁধে দরমুজ করেনাই, মাটি ভালোভাবে না বসার কারনে বাঁধ গুলো ধ্বসে যাচ্ছে। আর এখন আমরা গ্রামবাসী শেচ্চাশ্রমে বাঁধে কাজ করছি আমাদের ফসল রক্ষার জন্য, আমরা প্রশাসনের সবাইকে বলব যারা কাজে অবহেলা করেছে তাদের বিরুদ্ধে ব্যাবস্থা নেওয়ার জন্য।

মহালিয়া হাওরের মানিকখিলা গ্রামের কৃষক নাজিমুদ্দিন বলেন,অনেক পরিশ্রম করে দার দেনা করে টাকা আইন্না জমি করছি, যদি হাওরের বাঁধ ভাইঙ্গা যায় তাহলে আগামী এক বছর কিভাবে চলমু, পুলা ফুরি কিভাবে ফালমু, আরেকবার এই রকম হাওর ভুইরা গেছিল তখন পুলা পুরি নিয়া ঢাকা গেছিলামগা, বান্দের কাজ ভাল করছেনা, যারা কাজ করছে তাদের বিরুদ্ধে ব্যাবস্থা নেওয়া হউক। তিনি আরও বলেন বাঁধগুলো টিকিয়ে রাখতে আশঙ্কা জনক খবর পেলেই স্তানীয কৃষকদের সাথে নিয়ে ছুটে আসছেন উপজেলা চেয়ারম্যান বাবু করুনা সিন্ধু চৌধুরী বাবুল। এবং প্রযোজনীয় ব্যাবস্তা নিচ্ছেন,মসজিদের মাইকে ঘোষনা দিয়ে কৃষকদের জানানোর কথা বলছেন।

তাহিরপুর উপজেলার সৃজনশীল উপজেলা চেয়ারম্যান বাবু করুনা সিন্ধু চৌধুরী বাবুল বলেন,প্রতিনিয়ত কোন না কোন বাধ ধ্বসে যাবার খবর পাওয়া যাচ্ছে। যেখানেই বাধ ধ্বসে যাওয়ার খবর আসছে আমরা সেখানেই কৃষক ভাইদের নিয়ে বাধ রক্ষায় জন্য আপ্রান চেষ্টা করে যাচ্ছি। আমাদের পানি সম্পদ উপমন্ত্রী এনামুল হক শামীম সুনামগঞ্জের বিভিন্ন বাধ পরিদর্শন করেছেন, তিনি বলেছেন বাঁধে কোন রকম অনিয়ম সহ্য করা হবেনা, যারা বাধের কাজে অনিয়ম করেছে তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকদের প্রযোজনীয় সহযোগিতার কথা বলেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ