রবিবার, ২২ মে ২০২২, ১১:১২ পূর্বাহ্ন
বিশেষ ঘোষণাঃ
• করোনাভাইরাস প্রতিরোধে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলুন, টিকা নিন। • গুজব নয়, সঠিক সংবাদ জানুন। • দেশের কিছু জেলা, উপজেলা, গুরুত্বপূর্ণ স্থান এবং বিশ্বের কয়েকটি দেশের গুরুত্বপূর্ণ শহরে (খালি থাকা সাপেক্ষে) প্রতিনিধি নিয়োগ দেয়া হবে। • আপনি কি কোন বিশ্ববিদ্যালয়ে 'ফিল্ম ও মিডিয়া, গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা' বিষয়ে পড়ছেন? বাংলাদেশ প্রতিবেদন আপনাকে দিচ্ছে 'ইন্টার্নশিপ'-এর সুযোগ। • আপনিও হতে পারেন সাংবাদিক! চলতি পথে নানা অসঙ্গতি, দুর্নীতি, কারো সফলতা বা যেকোনো ভিন্নধর্মী খবর (ছবি অথবা ভিডিও) পাঠাতে পারেন। • হটলাইনঃ +৮৮০ ১৯ ০৯ ৮৬ ২৬ ১৬ (হোয়াটসঅ্যাপ), • ই-মেইলঃ protibedonbd@gmail.com • গুগল, ফেসবুক ও ইউটিউবে আমাদের পেতে Bangladesh Protibedon লিখে সার্চ দিন।

কাপাসিয়ায় বিত্তবানদের দখলে আশ্রয়ণ প্রকল্পের ঘর

মাহাবুর রহমান, গাজীপুর!!
প্রকাশকালঃ শুক্রবার, ৮ এপ্রিল, ২০২২

কাপাসিয়ায় বিত্তবানদের দখলে আশ্রয়ণ প্রকল্পের ঘর

জমি আছে ঘর নেই, এমন ছিন্নমূল পরিবারের মাথা গুজার ঠাঁই হিসেবে মুজিববর্ষ উপলক্ষে ভূমিহীন ও গৃহহীন ছিন্নমূল পরিবারের মাথা গুজার ঠাঁই হিসেবে গাজীপুরের কাপাসিয়া উপজেলার ঘাগটিয়ার চালা এলাকায় আশ্রয়ন-২ প্রকল্পের প্রথম পর্যায়ে জমিসহ ছয়টি ঘর নির্মাণ করে দিয়েছে সরকার। এ প্রকল্পে প্রথম ধাপে উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় ১১২ টি ঘর করে দেওয়া হয়েছে।

প্রকৃতপক্ষে এ ঘর গুলো যাদের দেওয়া কথা তাদের দেওয়া হয়নি। ঘর গুলো দেওয়া হয়েছে সমাজের বৃত্তবান ও প্রভাবশালী একই শরিকী পরিবারের লোকেদের। প্রায় ১লাখ ৭৫ হাজার টাকা ব্যয়ে প্রতিটি ইউনিটে দুটি কক্ষের বাড়ির মধ্যে একটি থাকার ঘর, একটি রান্নাঘর ও একটি টয়লেট বারান্দাসহ তৈরি করা হয়েছে।

সরেজমিন জানা যায়, সরকারি বরাদ্দে ভিটেমাটি হীনদের জন্য নির্মিত ছয়টি ঘর যাদের দেওয়া হয়েছে তারা কেউ এ ঘর পাওয়ার যোগ্য না। যারা ঘর পেয়েছেন এদের মধ্যে জুয়েনার স্বামী আরিফ মালয়েশিয়া, ওয়াহিদার স্বামী আমজাদ হোসেন সৌদি আরব ও মাসুদ রানা ওমান প্রবাস ফেরত। ঘর পাওয়া ওয়াহিদার স্বামী আমজাদ হোসেন সৌদি আরবে ১০ বছর প্রবাসী ছিলেন, সুধু তাই নয় তিন তলা ফাউন্ডেশনের ছাদ দেয়া একটি বাড়িও রয়েছে তাদের। জনমনে প্রশ্ন কিভাবে তারা পেল ভূমিহীন ও গৃহহীনদের দেয়া আশ্রয়ণ প্রকল্পের ঘর। যারা ঘর গুলো পেলেন তারা হলেন, স্থানীয় ইউপির সাবেক মেম্বার ইদ্রিস আলী মেয়ে মোসাঃ ওয়াহিদা। তার স্বামী সৌদি প্রবাসী আমজাদ হোসেনের ৩ তলা ফাউন্ডেশনের ছাদ দেয়া বাড়িটি রয়েছে আশ্রয়ণ প্রকল্পের পাশে ঢাকা-কিশোরগঞ্জ সড়কের ঘাগটিয়া চালা বাজার নামক স্থানে। ইদ্রিস আলী মেম্বারের ভাই ফার্ণিচার ব্যবসায়ী নুরুল ইসলামের ছেলে মাসুদ রানা, আরেক ভাই আব্দুল মান্নান এর ছেলে ইমান হোসেন। রাজু মিয়ার ছেলে গাড়ি চালক মুরাদ হোসেন, মৃত. হাবিবুর রহমানের ছেলে সাইফুল ইসলাম ও মৃত. ছমেদ আলীর ছেলে আনোয়ার হোসেন।

একই শরীকী পরিবারে ভূমিহীন ও গৃহহীন প্রকল্পের সরকারি ঘর গুলো কিভাবে পেয়েছেন জানতে চাইলে সাবেক মেম্বার ইদ্রিস আলী (ওয়াহিদার বাবা) বলেন, এসএ এবং সিএস রেকর্ডে এটা আমাদের জায়গা ছিল। আরএস রেকর্ডে জমিটা সরকারি হলেও আমাদের দখলেই ছিল। তিনি আরও বলেন, এখানে যারা ঘর পেয়েছে তারা সবাই আমাদের পরিবারের লোক ও আমাদের শরীকী।

সরকারি ঘর পাওয়াদের একজন ওয়াহিদার সাথে কথা হলে তিনি অকপটে বললেন, তার স্বামী আমজাদ হোসেন ১০ বছর সৌদি প্রবাসী ছিলেন এবং তিন তলা ফাউন্ডেশনের ছাদ দেয়া একটি বাড়ি আছে। এবিষয়ে জানতে চাইলে ওমান ফেরত মাসুদ রানা জানান, বিদেশে গিয়ে বেশি সুবিধা করতে পারিনি এজন্য ভূমিহীন ও গৃহহীন প্রকল্পের একটি ঘর পেয়েছি।এবিষয়ে জোয়েনা বলেন, স্বামী মালয়েশিয়ায় ছিল ঘর পাওয়ার মতো একটা সুযোগ পেয়েছি তাই নিয়ে নিলাম।

ঘরগুলো নির্মাণের সময় উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা ছিলেন শফিউর রহমান জোয়ার্দার। তিনি বর্তমানে সিরাজগঞ্জের কামারখন্দ উপজেলায় কর্মরত। এব্যাপারে তিনি বলেন, আমি শুধু প্রকল্প বাস্তবায়নে ব্যস্ত ছিলাম। ঘর পাওয়া লোকদের তালিকা এসিল্যান্ড ও ইউএনও মহোদয় যাচাই-বাছাই করেছে তারা বলতে পারবে কিভাবে ঘর গুলো দেয়া হয়েছে।

এবিষয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসার একেএম গোলাম মোর্শেদ খান বলেন, এ প্রকল্প বাস্তবায়নের সময় আমি এ উপজেলায় কর্মরত ছিলাম না। উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি)কে সাথে নিয়ে ব্যাপারটা দেখতে যাব।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ