শুক্রবার, ২৭ মে ২০২২, ০৬:৫৮ অপরাহ্ন
বিশেষ ঘোষণাঃ
• করোনাভাইরাস প্রতিরোধে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলুন, টিকা নিন। • গুজব নয়, সঠিক সংবাদ জানুন। • দেশের কিছু জেলা, উপজেলা, গুরুত্বপূর্ণ স্থান এবং বিশ্বের কয়েকটি দেশের গুরুত্বপূর্ণ শহরে (খালি থাকা সাপেক্ষে) প্রতিনিধি নিয়োগ দেয়া হবে। • আপনি কি কোন বিশ্ববিদ্যালয়ে 'ফিল্ম ও মিডিয়া, গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা' বিষয়ে পড়ছেন? বাংলাদেশ প্রতিবেদন আপনাকে দিচ্ছে 'ইন্টার্নশিপ'-এর সুযোগ। • আপনিও হতে পারেন সাংবাদিক! চলতি পথে নানা অসঙ্গতি, দুর্নীতি, কারো সফলতা বা যেকোনো ভিন্নধর্মী খবর (ছবি অথবা ভিডিও) পাঠাতে পারেন। • হটলাইনঃ +৮৮০ ১৯ ০৯ ৮৬ ২৬ ১৬ (হোয়াটসঅ্যাপ), • ই-মেইলঃ protibedonbd@gmail.com • গুগল, ফেসবুক ও ইউটিউবে আমাদের পেতে Bangladesh Protibedon লিখে সার্চ দিন।

৯ মাস সাপ-ব্যাঙের সাথে পানিতে থাকতে চায় না সাতক্ষীরার মানুষ!

নিজস্ব বার্তা প্রতিবেদক
প্রকাশকালঃ সোমবার, ২৮ মার্চ, ২০২২

৯ মাস সাপ-ব্যাঙের সাথে পানিতে থাকতে চায় না সাতক্ষীরার মানুষ!

আব্দুর রহিম/সাতক্ষীরা জেলা প্রতিনিধি:

সাতক্ষীরায় আসন্ন বর্ষা মৌসুমে সম্ভাব্য জলাবদ্ধতা দূরীকরণে করণীয় বিষয়ক নাগরিক সংলাপ অনুষ্ঠিত হয়েছে।
সোমাবার (২৮) বেলা ১১টায় সাতক্ষীরা পাবলিক লাইব্রেরি মিলনায়তনে সাতক্ষীরা জেলা নাগরিক কমিটি ও বেসরকারি গবেষণা প্রতিষ্ঠান বারসিক যৌথভাবে এই সংলাপের আয়োজন করে।
সংলাপে সাতক্ষীরা জেলা নাগরিক কমিটির আহ্বায়ক মো: আনিসুর রহিমের সভাপতিত্বে ও সদস্য সচিব আবুল কালাম আজাদের সঞ্চালনায় অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন সাতক্ষীরা জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক ও সদর উপজেলা চেয়ারম্যান আসাদুজ্জামান বাবু, সাতক্ষীরা পৌরসভার মেয়র তাসকিন আহমেদ চিশতী, সদর উপজেলা মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান কোহিনুর ইসলাম।
সংলাপে ‘আসছে বর্ষা ও জলাবদ্ধতা : নিষ্কাশনের পূর্ব প্রস্তুতি জরুরী’ শীর্ষক প্রবন্ধ পাঠ করেন প্রবীণ সাংবাদিক সুভাষ চৌধুরী। স্বাগত বক্তব্য রাখেন বারসিকের সহকারী কর্মসূচি কর্মকর্তা গাজী মাহিদা মিজান।

নাগরিক সমস্যাসমূহ তুলে ধরে বক্তব্য রাখেন নাগরিক নেতা ও শিক্ষাবিদ প্রফেসর আব্দুল হামিদ, অধ্যক্ষ আশেক-ই-এলাহী, জাসদ নেতা ওবায়দুস সুলতান বাবলু, বাসদ নেতা অ্যাড. শেখ আজাদ হোসেন বেলাল, বাংলাদেশ জাসদের নেতা অধ্যাপক ইদ্রিস আলী, জাতীয় পার্টির নেতা আনোয়ার জাহিদ তপন, মানবাধিকার কর্মী মাধব চন্দ্র দত্ত, উন্নয়ন কর্মী জি এম মনিরুজ্জামান ও অ্যাড. মুনীরউদ্দীন, সাংবাদিক আব্দুল ওয়ারেশ খান চৌধুরী, জলবায়ু কর্মী এস এম শাহিন আলম, জলাবদ্ধতায় ক্ষতিগ্রস্ত মাছখোলা গ্রামের বাসিন্দা আশুরা বেগম, রাজারবাগান এলাকার অণিমা দাসী, বদ্দিপুর কলোনীর জাহানারা বেগম, আশরাফ আলী প্রমুখ।

বক্তারা বলেন, বছরের নয় মাস সাপ ব্যাঙের সাথে পানিতে থাকবো আর তিন মাস ভালো থাকবো এমনভাবে আমাদের জীবনযাপন দুর্বিষহ হয়ে উঠেছে। এই যন্ত্রণা থেকে আমরা রক্ষা পেতে চাই। আমরা জলাবদ্ধতামুক্ত জনপদ চাই।

জনভোগান্তির এই অভিজ্ঞতা তুলে ধরে তারা আরও বলেন, বর্ষা মৌসুম শুরুর আগেই চিংড়ী চাষ এলাকাগুলো গুড়িয়ে দিয়ে যথাযথ নিষ্কাশন ব্যবস্থার মাধ্যমে পানি সরানো না গেলে সাতক্ষীরার মানুষ আবারও জলাবদ্ধতার কবলে পড়বে।

নাগরিক সংলাপে সাতক্ষীরা পৌর মেয়র তাসকিন আহমেদ চিশতী ও সাতক্ষীরা সদর উপজেলা চেয়ারম্যান আসাদুজ্জামান বাবু প্রায় একই সুরে বলেন, জলাবদ্ধতা নিরসনে সরকারের বরাদ্দকৃত টাকা নয়ছয় করা হচ্ছে। খননের নামে পানি উন্নয়ন বোর্ডের কর্মকর্তারা ঠিকাদার নিয়োগ নয় বরং নিজেরাই পরোক্ষভাবে ঠিকাদারিত্ব করে পানি সরানোর নামে এসব খননকাজ থেকে লুটে নিচ্ছেন কোটি কোটি টাকা। ২০১৪-১৫ সালে বেতনা খননের নামে যে লুটপাট চালানো হয়েছিল ঠিক একই ধারাবাহিকতা এখনও লক্ষ্য করা যাচ্ছে। সাতক্ষীরার প্রাণসায়ের খননের নামে বাস্তবতা বর্জিত প্রকল্প দিয়ে টাকা আত্মসাত এবং মরিচ্চাপ খননের নামেও একই কায়দায় সরকারি টাকা লুটপাটের মহোৎসব চলছে। আর এসব ব্যাপারে জনপ্রতিনিধি হিসাবে আমাদের কোন বক্তব্য পানি উন্নয়ন বোর্ড গ্রহণ করছে না। এমনকি এসব কাজের ভেতর ও বাহির সম্পর্কেও জনপ্রতিনিধিদের অবহিত করতে বাহানা করছেন।

সংলাপে অংশ নিয়ে নাগরিক সমাজের প্রতিনিধিরা বলেন, জলাবদ্ধতা দূর করতে ভদ্রলৌকিক সংলাপ করে লাভ হবে না বরং প্রশাসন, পানি উন্নয়ন বোর্ড ও সংশ্লিষ্টদের ঘেরাও করে জবাবদিহিতা আদায় করতে হবে। সরকার সাতক্ষীরার দুটি নদী বেতনা ও মরিচ্চাপ এবং সংশ্লিষ্ট ৮২টি খাল খননের মহাপরিকল্পনা নিয়ে ৪৭৬ কোটি টাকা বরাদ্দ দিয়েছেন। অথচ এই টাকা জনগণের কল্যানে ব্যবহৃত হতে পারছে না।

তারা আরও বলেন, সরকারের বরাদ্দ দেওয়া টাকা পাউবো কর্মকর্তারা নিজেদের আড়াল করে ঠিকাদারদের নামে কিনে নেয়। সেই কাজে নিয়োগ করা হয় সাব ঠিকাদার। আর সাব ঠিকাদাররা শ্রমিকদের সাথে চুক্তি করে সামান্য কিছু কাজ দেখিয়ে প্রকল্পের ইতি টেনে থাকেন। এভাবেই সরকারি টাকা কর্মকর্তারা পকেটে তুলে নেয়। আর মানুষ বারবারই জলাবদ্ধতায় ডুবতে থাকে। অনতিবিলম্বে প্রাণসায়ের খাল যথানিয়মে খনন করে বেতনার তিন চারটি অকেজো স্লুইসগেট গুড়িয়ে দিয়ে এবং চিংড়ী চাষের নামে দেওয়া ছোটবড় বাঁধ ভেঙে চুরে ও সাতক্ষীরা পৌর এলাকার ড্রেনেজ ব্যবস্থাকে সচল করে জনগণকে জলাবদ্ধতামুক্ত করা যাবে বলে নাগরিক কমিটির সদস্যরা জোরালো মন্তব্য করেন।

আর এই দাবি আদায়ে মাঠে নামার কথা উল্লেখ করে সাতক্ষীরা পৌরসভা, সদর উপজেলা পরিষদ, সকল ইউপি চেয়ারম্যান, সকল জনপ্রতিনিধি, পেশাজীবী সংগঠন, রাজনৈতিক দল এবং নাগরিক সমাজকে এক প্ল্যাটফর্মে এসে কাজ করতে হবে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ