সোমবার, ২৩ মে ২০২২, ১১:০৬ অপরাহ্ন
বিশেষ ঘোষণাঃ
• করোনাভাইরাস প্রতিরোধে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলুন, টিকা নিন। • গুজব নয়, সঠিক সংবাদ জানুন। • দেশের কিছু জেলা, উপজেলা, গুরুত্বপূর্ণ স্থান এবং বিশ্বের কয়েকটি দেশের গুরুত্বপূর্ণ শহরে (খালি থাকা সাপেক্ষে) প্রতিনিধি নিয়োগ দেয়া হবে। • আপনি কি কোন বিশ্ববিদ্যালয়ে 'ফিল্ম ও মিডিয়া, গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা' বিষয়ে পড়ছেন? বাংলাদেশ প্রতিবেদন আপনাকে দিচ্ছে 'ইন্টার্নশিপ'-এর সুযোগ। • আপনিও হতে পারেন সাংবাদিক! চলতি পথে নানা অসঙ্গতি, দুর্নীতি, কারো সফলতা বা যেকোনো ভিন্নধর্মী খবর (ছবি অথবা ভিডিও) পাঠাতে পারেন। • হটলাইনঃ +৮৮০ ১৯ ০৯ ৮৬ ২৬ ১৬ (হোয়াটসঅ্যাপ), • ই-মেইলঃ protibedonbd@gmail.com • গুগল, ফেসবুক ও ইউটিউবে আমাদের পেতে Bangladesh Protibedon লিখে সার্চ দিন।

ফুলবাড়ীয়ায় নামের আগে ডাক্তার ও সরকারী লগো ব্যবহার করে চিকিৎসার নামে চলছে প্রতারণা

নিজস্ব বার্তা প্রতিবেদক
প্রকাশকালঃ মঙ্গলবার, ২২ মার্চ, ২০২২

ফুলবাড়ীয়ায় নামের আগে ডাক্তার ও
সরকারী লগো ব্যবহার করে চিকিৎসার
নামে চলছে প্রতারণা।

মোহাম্মদ ছালাহ্ উদ্দিন উজ্জ্বল বিশেষ প্রতিনিধিঃ

ময়মনসিংহের ফুলবাড়ীয়ায় সরকারী লগো ও ডাক্তার না হয়েও নামের আগে ডাক্তার লেখে চিকিৎসার নামে প্রতারণার অভিযোগ উঠেছে মাহবুবুল আলম নামের কথিত ডাক্তারের বিরুদ্ধে। এমবি বিএস / বিডিএস ডিগ্রি ছাড়া নামের আগে ডাক্তার লেখা নিষেধ থাকলেও তিনি তা মানছেন না। সুত্র জানায়, উপজেলার কুশমাইল
ইউনিয়নের ছলির বাজারে মাহবুবুল আলম নামে কথিত ঐ চিকিৎসক ডা. না হয়েও সাইনবোর্ড ও প্রেসক্রিপশনে ডাক্তার ও সরকারী লগো ব্যবহার করে চিকিৎসার নামে প্রতারণা করছেন । কথিত ঐ ডাক্তার একজন ফার্মাসিস্ট। তিনি কুশমাইল ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্রে চাকুরী করেন। এ সুবাদে সরকারী চাকুরীকে পুঁজি করে মানুষের
নিকট নিজের কাটতি বাড়াতে তিনি ডাক্তার না হয়েও ডাক্তার পরিচয় ও
সরকারী লগো ব্যবহার করে চিকিৎসার নামে প্রতারণা করছেন। মেডিকেল কলেজে পড়াশুনা না করেও নামের আগে ডাক্তার লেখা কথিত ডাক্তারদের দৌরাত্ম্যে চরম বিব্রত মেডিকেল থেকে পাশ করা এমবিবিএস গ্রেজুয়েট ধারী ডাক্তারেরা। উপজেলার গ্রামাঞ্চলে
চিকিৎসক সংকট, মানুষের অসচেতনতা ও প্রশাসনের নজরদারি না থাকায় প্রতিনিয়ত রোগী দেখছেন নামধারী কতিথ ডাক্তারেরা। মেডিকেল কলেজে পড়াশোনা না করেই করছেন সকল রোগের চিকিৎসা। তাঁদের ভুল চিকিৎসায় প্রতারিত হওয়ার পাশাপাশি স্বাস্থ্য ঝুঁকিতে পড়ছেন রোগীরা। সরেজমিনে দেখা যায়, অভিযুক্ত ডাক্তার মাহবুবুল আলম কুশমাইল ছলির বাজারে সাদ সেবালয়ে নিজের নামে একটি সাইনবোর্ড সাটিয়েছেন। যেখানে তিনি লিখেছেন ডি এম পি মেডিসিন,এফটি ডি, এম সি এইচ ঢাকা, চর্ম , যৌন, শ্বাসকষ্ট এবং বাত
ব্যথা মা ও শিশুরোগে অভিজ্ঞ। যা দেখলে যে কেউ মনে করবে উনি একজন
গ্রেজুয়েটধারী ডাক্তার। সাইনবোর্ডটিতে নিজের নামের নিচে এত ডিগ্রি জাহের করলেও তিনি কুশমাইল ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কেন্দ্রে কোন পদে চাকুরি করেন তা লিপিবদ্ধ করেননি। অভিযোগ উপজেলায় ব্যাঙ্গের ছাতার মতো বেড়েছে ডাক্তার শব্দের ব্যবহার। এত করে ডাক্তারি পেশার মান ক্ষুন্ন হওয়ার পাশাপাশি রোগীরাও প্রতারিত হচ্ছে। স্থানীয়রা বলেন, আমরা শুনেছি মাহবুবুল আলম স্যার সরকারী ডাক্তার। তাই তার কাছ থেকে সেবা নেই। তিনি ফার্মাসিস্ট হয়ে চিকিৎসার নামে আমাদের সাথে প্রতারণা করছেন এটি খুবই দুঃখজনক।
ডাক্তার না হয়েও ডাক্তার পরিচয়ে রোগীদের সাথে প্রতারণার অভিযোগে প্রসঙ্গে জানতে চাইলে মাহবুবুল আলম মুঠোফোনে এই প্রতিবেদককে বলেন,ডাক্তার পদবী ব্যবহার করা ঠিক হয়নি। আমি আপনাকে ১০মিনিট পর ফোন দিচ্ছি বলে ফোন কেটে দেন।
উপজেলা পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা আতিকুন্নাহার বলেন, সে একজন
ফার্মাসিস্ট তার কাজ হলো রোগীদের ঔষধ দেওয়া ও স্টক ম্যান্টেইন করা ।
সে কোনভাবেই নামের আগে ডা. লিখে রোগী দেখতে পারেনা।
উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. বিধান চন্দ্র দেবনাথ বলেন, এম বি বিএস ও বিডিএস ডিগ্রি ছাড়া কেউ ডাক্তার পরিচয় দিতে পারে না। তিনি ফার্মাসিস্ট হয়ে যেটি করেছেন এটি ঠিক না।
ময়মনসিংহ সিভিল সার্জন নজরুল ইসলাম বলেন, ডাক্তার না হয়ে সে
ডাক্তার লিখতে পারেনা, এটি অন্যায়।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ