মঙ্গলবার, ১৬ অগাস্ট ২০২২, ০৪:৩৮ অপরাহ্ন
বিশেষ ঘোষণাঃ
• করোনাভাইরাস প্রতিরোধে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলুন, টিকা নিন। • গুজব নয়, সঠিক সংবাদ জানুন। • দেশের কিছু জেলা, উপজেলা, গুরুত্বপূর্ণ স্থান এবং বিশ্বের কয়েকটি দেশের গুরুত্বপূর্ণ শহরে (খালি থাকা সাপেক্ষে) প্রতিনিধি নিয়োগ দেয়া হবে। • আপনি কি কোন বিশ্ববিদ্যালয়ে 'ফিল্ম ও মিডিয়া, গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা' বিষয়ে পড়ছেন? বাংলাদেশ প্রতিবেদন আপনাকে দিচ্ছে 'ইন্টার্নশিপ'-এর সুযোগ। • আপনিও হতে পারেন সাংবাদিক! চলতি পথে নানা অসঙ্গতি, দুর্নীতি, কারো সফলতা বা যেকোনো ভিন্নধর্মী খবর (ছবি অথবা ভিডিও) পাঠাতে পারেন। • হটলাইনঃ +৮৮০ ১৯ ০৯ ৮৬ ২৬ ১৬ (হোয়াটসঅ্যাপ), • ই-মেইলঃ protibedonbd@gmail.com • গুগল, ফেসবুক ও ইউটিউবে আমাদের পেতে Bangladesh Protibedon লিখে সার্চ দিন।

আখাউড়ায় ভারতীয় সীমান্তরক্ষীদের সীমালংঘন

বাংলাদেশ প্রতিবেদন
প্রকাশকালঃ বৃহস্পতিবার, ১৩ জানুয়ারি, ২০২২

আখাউড়ায় ভারতীয় সীমান্তরক্ষীদের সীমালংঘন।

মোবারক হোসেন জীবন/আখাউড়া (ব্রাক্ষণবাড়ীয়া) প্রতিনিধি:

ব্রাক্ষণবাড়ীয়ার আখাউড়ার সীমান্তে শহীদ মুক্তিযোদ্ধাদের অবমাননা করলেন ভারতীয় সীমান্ত প্রহরী বিএসএফ। এতে ক্ষোভে ফেটে পড়েছেন আখাউড়া মুক্তিযুদ্ধ সংসদসহ স্থানীয় অধিবাসীরা।

জানা যায়, বুধবার, ‍১৩ই জানুয়ারি আন্তর্জাতিক সীমানা নীতি ভঙ্গ করে বাংলাদেশে অবাধে প্রবেশ করে বিএসএফ সৈনিকরা।

ঘটনাটি ঘটে সীমান্তবর্তী গ্রাম সেনারবাদীতে।
ভারতীয় প্রহরীরা হঠাৎ করেই সীমান্ত ফলক অতিক্রম করে উদ্যতভাবে গ্রামটিতে প্রবেশের চেষ্টা করে। শুরুতেই তারা সীমানার অদূরে মুক্তিযোদ্ধাদের গনকবরের নামফলক উপড়িয়ে ফেলে। এতে স্থানীয় যুবকরা ক্ষুব্দ হয়ে প্রতিবাদ জানালে তাদের হুমকি দনে বিএসএফ জোয়ানরা।

পরিস্থিতি বিজিবির কানে পৌছালে, তাৎক্ষনিকভাবে বিজিবি ব্যাটেলিয়ান ঘটনাস্থলে রওনা হন। তবে অবস্থার অবনটি ঘটার আগেই নিজ দেশের সীমানা দিয়ে নিরাপদ দূরত্বে চলে যান ভারতীয় সীমান্ত প্রহরীরা।

স্থানীয় গণমাধ্যমকর্মী জানান, আখাউড়া ও ভারতের ত্রিপুরা রাজ্যের আগরতলা সীমান্তে ঘেষে মুক্তিযোদ্ধাদের স্মৃতিচিহ্নটি সুরক্ষিত করতে ২০১৯ সালে ৮ নভেম্বর ‘মুক্তিযুদ্ধ একাডেমি ট্রাস্ট ঢাকা’ সেনারবাদীতে আনুষ্ঠানিকভাবে স্মৃতিফলকটি স্থাপন করেছিলেন। যেটি মহান মুক্তিযুদ্ধে নিহত বীরদের চিহ্নবহন করে সেনারবাদী তথা আখাউড়ার মাটিকে গর্বিত করেছিলো। কিন্তু ভিনদেশীদের এমন উদ্ধত্য আচারণ দেখে হতবাক আখাউড়ার সচেতন নাগরিকরা।

কান্ডজ্ঞানহীন এ কর্মকাণ্ডের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন তারা, প্রতিবাদে আরো যোগদিয়েছেন উপজেলার মুক্তিযোদ্ধা ও শহীদের সন্তানরা।

অন্যদিকে, আখাউড়া বিজিবি ক্যাম্প কমান্ডার মো. ফরিদ ঘটনার সত্যতা গণমাধ্যমের কাছে স্বীকার করে নেন এবং জানান, বুধবার সন্ধ্যার মধ্যেই ভারতীয় বিএসএফকে লিখিতভাবে প্রতিবাদলিপি পাঠানো হবে।

উল্লেখ্য, আখাউড়া সীমান্তে ভারতীয় প্রহরীদের সাথে বাংলাদেশী জোয়ানদের প্রায়ই থমথমে অবস্থা দেখা যায়। সীমান্ত অপরাধ ঠেকাতে দুদেশের প্রহরীরা সজাগ হওয়ায় সংঘর্ষ যেমন লেগে থাকে , আবার সহসা মিটমাটও হয়ে যায়।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ