বুধবার, ০৬ জুলাই ২০২২, ০৯:৫৫ অপরাহ্ন
বিশেষ ঘোষণাঃ
• করোনাভাইরাস প্রতিরোধে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলুন, টিকা নিন। • গুজব নয়, সঠিক সংবাদ জানুন। • দেশের কিছু জেলা, উপজেলা, গুরুত্বপূর্ণ স্থান এবং বিশ্বের কয়েকটি দেশের গুরুত্বপূর্ণ শহরে (খালি থাকা সাপেক্ষে) প্রতিনিধি নিয়োগ দেয়া হবে। • আপনি কি কোন বিশ্ববিদ্যালয়ে 'ফিল্ম ও মিডিয়া, গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা' বিষয়ে পড়ছেন? বাংলাদেশ প্রতিবেদন আপনাকে দিচ্ছে 'ইন্টার্নশিপ'-এর সুযোগ। • আপনিও হতে পারেন সাংবাদিক! চলতি পথে নানা অসঙ্গতি, দুর্নীতি, কারো সফলতা বা যেকোনো ভিন্নধর্মী খবর (ছবি অথবা ভিডিও) পাঠাতে পারেন। • হটলাইনঃ +৮৮০ ১৯ ০৯ ৮৬ ২৬ ১৬ (হোয়াটসঅ্যাপ), • ই-মেইলঃ protibedonbd@gmail.com • গুগল, ফেসবুক ও ইউটিউবে আমাদের পেতে Bangladesh Protibedon লিখে সার্চ দিন।

কক্সবাজারে সংঘবদ্ধ ধর্ষণ মামলার প্রধান আসামী আশিক ৩ দিনের রিমান্ডে

বাংলাদেশ প্রতিবেদন
প্রকাশকালঃ মঙ্গলবার, ৪ জানুয়ারি, ২০২২

শাহজাহান চৌধুরী শাহীন, কক্সবাজার।।

কক্সবাজার শহরে এক নারী পর্যটককে সংঘবদ্ধ ধর্ষণ মামলায় প্রধান আসামি আশিকুল ইসলাম আশিককে তিনদিনের রিমান্ডে নিয়েছে ট্যুরিস্ট পুলিশ।
মঙ্গলবার ( ৪ জানুয়ারি) সকাল ১১ টার দিকে আদালতে শুনানি শেষে কক্সবাজারের জ্যেষ্ঠ বিচারিক হাকিম আবুল মনসুর ছিদ্দিকী আসামিকে রিমান্ডে পাঠানোর নির্দেশ দেন।
এর আগে তাকে সাতদিন রিমান্ডে নিতে আবেদন করেছিলেন ট্যুরিস্ট পুলিশ।
মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ট্যুরিস্ট পুলিশের পরিদর্শক রুহুল আমিন বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

এর আগে ৩ জানুযারী রাত সাড়ে ৮ টায় আলোচিত সংঘবদ্ধ ধর্ষণ মামলার এজাহার নামীয় পলাতক আসামি মেহেদী হাসান বাবুকে (২৫) শহরের ঘোনারপাড়া এলাকা থেকে
গ্রেফতার করেছে ট্যুরিস্ট পুলিশ। সে কক্সবাজার পৌরসভার বাহারছড়া এলাকার আবুল কাশেমের ছেলে।
তদন্তকারী সংস্থা ট্যুরিস্ট পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মহিউদ্দিন আহমেদ এই তথ্য নিশ্চিত করেছে।
তিনি জানান, গ্রেফতার বাবু উক্ত মামলার এজাহার নামীয় দুই নম্বর আসামি। ঘটনার পর থেকে সে গ্রেফতার এড়াতে বিভিন্ন জায়গায় পালিয়ে বেড়াচ্ছিল। এ নিয়ে ধর্ষণের এই মামলায় এজহার নামীয় ৪ জনসহ মোট ৭ আসামিকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

এর মধ্যে মামলার প্রধান আসামি ধর্ষণের মুল হুতা আশিকুল ইসলাম আশিককে মাদারীপুর জেলা থেকে গ্রেফতার করে র‍্যাব। তাকে ঢাকা সিএমএম আদালতে সোপর্দ করে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে পাঠানো হয়েছে। এছাড়া ঘটনার পর দিন র‍্যাবের হাতে গ্রেফতার হয় মামলার ৪ নম্বর আসামি জিয়া গেস্ট ইন হোটেল ম্যানেজার রিয়াজ উদ্দিন ছোটন।
এর আগে মামলার তিন নম্বর আসামি ইস্রাফিল হুদা জয় ও সন্দেহভাজন ৩ আসামি মেহেদী হাসান, মামুনুর রশীদ ও রেজাউল করিম সাহাবুদ্দিনকে গ্রেফতার করে ট্যুরিস্ট পুলিশ।
সর্বশেষ গ্রেফতার হলো মেহেদী হাসান বাবু। তাকে মঙ্গলবার ৪ জানুয়ারী আদালতে সোপর্দ করে রিমান্ড চাওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন ট্যুরিস্ট পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মহিউদ্দিন আহমেদ।
মামলার প্রধান আসামি আশিক ছাড়া অপর ৫ আসামিকে বিভিন্ন মেয়াদে রিমান্ডে জিজ্ঞাসাবাদ শেষে কারাগারে পাঠানো হয়েছে বলেও জানান তিনি।

 


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ