বৃহস্পতিবার, ০৬ অক্টোবর ২০২২, ০৭:৪৫ পূর্বাহ্ন
বিশেষ ঘোষণাঃ
• করোনাভাইরাস প্রতিরোধে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলুন, টিকা নিন। • গুজব নয়, সঠিক সংবাদ জানুন। • দেশের কিছু জেলা, উপজেলা, গুরুত্বপূর্ণ স্থান এবং বিশ্বের কয়েকটি দেশের গুরুত্বপূর্ণ শহরে (খালি থাকা সাপেক্ষে) প্রতিনিধি নিয়োগ দেয়া হবে। • আপনি কি কোন বিশ্ববিদ্যালয়ে 'ফিল্ম ও মিডিয়া, গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা' বিষয়ে পড়ছেন? বাংলাদেশ প্রতিবেদন আপনাকে দিচ্ছে 'ইন্টার্নশিপ'-এর সুযোগ। • আপনিও হতে পারেন সাংবাদিক! চলতি পথে নানা অসঙ্গতি, দুর্নীতি, কারো সফলতা বা যেকোনো ভিন্নধর্মী খবর (ছবি অথবা ভিডিও) পাঠাতে পারেন। • হটলাইনঃ +৮৮০ ১৯ ০৯ ৮৬ ২৬ ১৬ (হোয়াটসঅ্যাপ), • ই-মেইলঃ protibedonbd@gmail.com • গুগল, ফেসবুক ও ইউটিউবে আমাদের পেতে Bangladesh Protibedon লিখে সার্চ দিন।

সেবাবান্ধব টেকনাফ ভূমি অফিস : সেবা পাচ্ছেন ভুমি মালিকরা

বাংলাদেশ প্রতিবেদন
প্রকাশকালঃ বৃহস্পতিবার, ১৬ ডিসেম্বর, ২০২১

জাফর আলম,কক্সবাজার।।

কক্সবাজারের টেকনাফ ভূমি অফিসে ভূমি মালিকরা কর্মকর্তা-কর্মচারীদের কাছ থেকে পাচ্ছে ভূমি সংক্রান্ত সব ধরনের সেবা।পাচ্ছে ভালো আচরণও ।টেকনাফ ভূমি অফিসের কানুনগো (ভারপ্রাপ্ত) দেলোয়ার। সদাহাস্যজ্বল অমিলন চেহারায় সকালে ভূমি অফিসে গেলেই সেবাপ্রার্থীরা দেখে কানুনগো দেলোয়ারকে। সেবাপ্রার্থীদের ভূমির নামজারী থেকে শুরু করে সকল সমস্যা তার সাধ্যমতো সমাধান এবং প্রার্থীদের সেবা দিয়ে যাচ্ছেন বলে জানিয়েছেন বেশ কয়েকজন সেবাপ্রার্থী। টেকনাফ এসি ল্যান্ড অফিস ঘুরে দেখা যায় সত্যিই পাল্টে গেছে সেখানকার চিত্র। জনগণকে সেবা দেওয়ার জন্য সেখানে পরিবেশের অনেক উন্নতি ঘটেছে। নামজারি কিংবা মিস কেস করতে গিয়ে কিছুদিন আগেও সেবাপ্রার্থীদের ঘণ্টার পর ঘণ্টা দাঁড়িয়ে থাকতে হতো। এখন প্রতিটি এসি ল্যান্ড অফিসেই বসার জন্য চেয়ারের ব্যবস্থা রাখা হয়েছে।সেবাপ্রার্থী বসে আছে। হ্নীলা থেকে আসা শফিক বলেন, ‘কয়েক মাস আগেও নামজারির আবেদন জমা দিতে এসে কত যে হয়রানি হয়েছি! এখন সাজানো-গোছানো অফিসে সহজেই সেবা পাওয়া যাচ্ছে। টেকনাফ এসি ল্যান্ড,কানুনগো নিজে এসে সেবা নিশ্চিত করছেন। তিনি অপেক্ষমাণ সেবাপ্রার্থীদের কাছে এসে জানতে চান, সেবা নিতে তাদের কোনো অসুবিধা হচ্ছে কি না। তাঁদের এ আচরণে আমরা সত্যি অভিভূত।টেকনাফ ভূমি অফিসে গিয়ে একাধিক ব্যক্তিকে দেখা গেল সরকারি স্বার্থসংশ্লিষ্ট জমি পরীক্ষা-নিরীক্ষা করাতে। শিলখালী মৌজার শামশু এসেছেন কয়েকটি দাগ নম্বর পরীক্ষা করাতে। ওই সব দাগের জমি কেনার আগে তিনি তাতে সরকারি কোনো স্বার্থ আছে কি না, তা জানা প্রয়োজন মনে করছেন।কাননুগো দেলোয়ার(ভারপ্রাপ্ত) কয়েক সেকেন্ডের মধ্যে কম্পিউটার থেকে দাগ নম্বরগুলো বের করে ওই সব দাগের মধ্যে সরকারি খাসজমির অস্তিত্ব দেখালেন। সেবাপ্রার্থী সিদ্ধান্ত নিলেন তিনি আর ওই জমি কিনবেন না।কানুনগো দেলোয়ার এভাবে নিরলসভাবে সেবা দিচ্ছেন বলে জানিয়েছেন ভূমি অফিসে আসা সকল সেবাপ্রার্থী। একাধিক সেবাপ্রার্থী জানায়,টেকনাফ ভূমি অফিস আগের চেয়ে অনেক বেশি সেবাবান্ধব হয়ে উঠেছে। নামজারি ফাইল জমা দেওয়া কিংবা মিস কেস দায়ের করার পর আর সেখানে নম্বর এবং পরবর্তী শুনানির জন্য অপেক্ষা করতে হয় না। ফাইল জমা হওয়ার পরপরই সেবাপ্রার্থীর মোবাইল ফোনে এসএমএসের মাধ্যমে নামজারি-মিস কেসের নম্বর এবং পরবর্তী শুনানির তারিখ জানিয়ে দেওয়া হচ্ছে। প্রয়োজনবোধে মোবাইল ফোনের মাধ্যমে তথ্যসেবা দেওয়া হচ্ছে।সাধ্যমতো কানুনগো (ভারপ্রাপ্ত) সেবা দিয়ে যাচ্ছেন বলে জানিয়েছেন সেবাপ্রার্থীরা।এবিষয়ে জানতে চাইলে সার্ভেয়ার দেলোয়ার (ভারপ্রাপ্ত) কানুনগো জানান, এসিল্যান্ড স্যারের দিকদির্দেশনায় যতটুকু পারি সেবা দিতে চেষ্টা। যতদিন থাকি সেবা দিয়ে যাবো বলে জানিয়েছেন তিনি।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ