বৃহস্পতিবার, ১১ অগাস্ট ২০২২, ০৩:১৯ অপরাহ্ন
বিশেষ ঘোষণাঃ
• করোনাভাইরাস প্রতিরোধে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলুন, টিকা নিন। • গুজব নয়, সঠিক সংবাদ জানুন। • দেশের কিছু জেলা, উপজেলা, গুরুত্বপূর্ণ স্থান এবং বিশ্বের কয়েকটি দেশের গুরুত্বপূর্ণ শহরে (খালি থাকা সাপেক্ষে) প্রতিনিধি নিয়োগ দেয়া হবে। • আপনি কি কোন বিশ্ববিদ্যালয়ে 'ফিল্ম ও মিডিয়া, গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা' বিষয়ে পড়ছেন? বাংলাদেশ প্রতিবেদন আপনাকে দিচ্ছে 'ইন্টার্নশিপ'-এর সুযোগ। • আপনিও হতে পারেন সাংবাদিক! চলতি পথে নানা অসঙ্গতি, দুর্নীতি, কারো সফলতা বা যেকোনো ভিন্নধর্মী খবর (ছবি অথবা ভিডিও) পাঠাতে পারেন। • হটলাইনঃ +৮৮০ ১৯ ০৯ ৮৬ ২৬ ১৬ (হোয়াটসঅ্যাপ), • ই-মেইলঃ protibedonbd@gmail.com • গুগল, ফেসবুক ও ইউটিউবে আমাদের পেতে Bangladesh Protibedon লিখে সার্চ দিন।

কৃষি কর্মকর্তা ভারতে, সম্প্রসারণ অফিসার ঢাকায় অফিসের নাম্বার বন্ধ, হতাশায় কৃষক

বাংলাদেশ প্রতিবেদন
প্রকাশকালঃ সোমবার, ৬ ডিসেম্বর, ২০২১

কৃষি কর্মকর্তা ভারতে, সম্প্রসারণ অফিসার ঢাকায় অফিসের নাম্বার বন্ধ, হতাশায় কৃষক।

টঙ্গিবাড়ী (মুন্সীগঞ্জ) প্রতিনিধিঃ

ঘুর্নিঝড় জাওয়াদ এর প্রভাবে মুন্সিগঞ্জের টঙ্গিবাড়ীতে তিন দিনের টানা বর্ষণে আলুর জমিতে পানি জমে গেছে।
এতে সদ্য রোপণ করা আলু বীজ পচে নষ্ট হয়ে যাবে। এ বছর টঙ্গিবাড়ী উপজেলার ৯ হাজার ৯ শত‌ হেক্টর জমিতে আলু আবাদ করা হবে।
এরমধ্যে ইতিমধ্যে প্রায় ৫ হাজার হেক্টর জমিতে আলু রোপন হয়েছে বলে টঙ্গিবাড়ী কৃষি অফিস সূত্রে জানা গেছে।

এ বিষয়ে জানতে টঙ্গীবাড়ী কৃষি অফিসে ফোন করলে ওই অফিসের কর্মকর্তা আমিনুর রহমান মুঠোফোনে জানান, টঙ্গিবাড়ী উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা জয়নাল আলম তালুকদার শারীরিকভাবে অসুস্থ হওয়ায় সে ভারতে চিকিৎসা নিতে গেছে। অন্যদিকে কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা সবুজ চৌধুরী জরুরী কাজে ঢাকায় আছে‌। এদিকে কৃষি অফিসের সার্বক্ষণিক ব্যবহারের জন্য মোবাইল নাম্বারটি ০১৭০০৭১৫৭৮৫ বন্ধ পাওয়া গেছে।

এদিকে বৃষ্টি অব্যাহত থাকায় পানিতে প্রতিনিয়ত কৃষকের জমি তলিয়ে যাচ্ছে। এতে কৃষকের বুকে হাহাকার উঠেছে। গত বছর আলুতে বিপুল পরিমাণ লোকসানের পর ক্ষতি পুষিয়ে নিতে কৃষক যখন ধারদেনা করে আলু আবাদ শুরু করেছেন, তখন টানা এই তিন দিনের বৃষ্টিতে কৃষকের জমিতে পানি জমে আলুবীজ নষ্ট হয়ে যাচ্ছে।

টঙ্গিবাড়ী উপজেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানাগেছে এ বছর উপজেলার প্রায় ৯ হাজার ৯০০ হেক্টর জমিতে আলু আবাদ করা হবে । ইতিমধ্যে প্রায় অর্ধেক জমিতে আলু রোপণ করা হয়েছে। বাকি জমিতে আলু রোপণের প্রস্তুতি নিচ্ছেন উপজেলার বিভিন্ন এলাকার কৃষক। এর মধ্যে হঠাৎ অনাকাঙ্খিত বৃষ্টিতে কৃষকের জমিতে পানি জমে গেছে। এতে একদিকে রোপণ করা আলুতে পচন ধরেছে অন্যদিকে আলু রোপণ করার জন্য প্রস্তুত করা জমিতে পানি জমে যাওয়ায় রোপণ কাজ বন্ধ রাখতে হচ্ছে। এতে প্রস্তুতকৃত জমি পুনরায় মাটি শুকানোর পরে চাষাবাদ করতে কৃষকের একদিকে উৎপাদন ব্যয় বৃদ্ধি পাবে অন্যদিকে আলু চাষে বিলম্ব ঘটায় উৎপাদন ৩০ থেকে ৩৫ শতাংশ কম হওয়ার সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে।

সরেজমিনে উপজেলার ধীপুর, মান্দ্রা, পাঁচগাঁও, চাঠাতিপাড়া, কাইচমালধা, ফজুশা, আড়িয়ল, বালিগাঁও, যশলং চর ছটফটিয়া এলাকায় আলু জমিগুলো পানিতে তালিয়ে আছে।
উপজেলার চর ছটফটিয়া গ্রামে গিয়ে আলু চাষী মোঃ মমিন শেখ (৪৩) এর সাথ কথা বললে তিনি প্রথমে সাংবাদিক দেখে আবেগে কেঁদে ফেলেন। পরে বলেন, গতবছর আলু চাষ করে অনেক লোকশান হলেও এইবার ঋন করে আলু বীজ গুলো লাগিয়ছিলাম এই বীজ আলুগুলোও পঁচে যাবে। এখন সংসার নিয়ে কি যে করব তা ভাবতেই পরাছি না।

এ ব্যাপারে মুন্সিগঞ্জ জেলা কৃষি অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক মোঃ খুরশিদ আলম বলেন, এ বছর মুন্সিগঞ্জ জেলায় ৩৭ হাজার ৯শত হেক্টর জমিতে আলু চাষের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। ইতিমধ্যে ১৭ হাজার হেক্টরের কিছু বেশি জমিতে আলু আবাদ করা সম্পন্ন হয়েছে।গত কয়েক দিনের বৃষ্টিতে নিচু এলাকায় যে সমস্ত জমিগুলো রয়েছে সেই সমস্ত জমির রোপণ করা ‌আলু পানিতে তলিয়ে গেছে। তবে আমরা কৃষকরা উপদেশ দিচ্ছি,যে জমিগুলোতে পানি জমে গেছে জমিগুলোতে ড্রেন কেটে জমি হতে পানি বের করে দিতে হবে, যে সমস্ত জমিতে ইতিমধ্যে আলু গাছ গজিয়েছে সেই সমস্ত জমিতে ছত্রাকনাটক স্প্রে করতে হবে, বৃষ্টিপাত ক্লিয়ার না হওয়া পর্যন্ত আর কোন জমিতে আলু আবাদ করা যাবেনা।

৬.১২.২১


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ