বুধবার, ১৭ অগাস্ট ২০২২, ০৯:২৭ পূর্বাহ্ন
বিশেষ ঘোষণাঃ
• করোনাভাইরাস প্রতিরোধে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলুন, টিকা নিন। • গুজব নয়, সঠিক সংবাদ জানুন। • দেশের কিছু জেলা, উপজেলা, গুরুত্বপূর্ণ স্থান এবং বিশ্বের কয়েকটি দেশের গুরুত্বপূর্ণ শহরে (খালি থাকা সাপেক্ষে) প্রতিনিধি নিয়োগ দেয়া হবে। • আপনি কি কোন বিশ্ববিদ্যালয়ে 'ফিল্ম ও মিডিয়া, গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা' বিষয়ে পড়ছেন? বাংলাদেশ প্রতিবেদন আপনাকে দিচ্ছে 'ইন্টার্নশিপ'-এর সুযোগ। • আপনিও হতে পারেন সাংবাদিক! চলতি পথে নানা অসঙ্গতি, দুর্নীতি, কারো সফলতা বা যেকোনো ভিন্নধর্মী খবর (ছবি অথবা ভিডিও) পাঠাতে পারেন। • হটলাইনঃ +৮৮০ ১৯ ০৯ ৮৬ ২৬ ১৬ (হোয়াটসঅ্যাপ), • ই-মেইলঃ protibedonbd@gmail.com • গুগল, ফেসবুক ও ইউটিউবে আমাদের পেতে Bangladesh Protibedon লিখে সার্চ দিন।

চকরিয়ায় সর্বোচ্চ ভোটে জয়ী প্রথম নারী ইউপি চেয়ারম্যান ফারহানা আফরিন মুন্না

বাংলাদেশ প্রতিবেদন
প্রকাশকালঃ সোমবার, ২৯ নভেম্বর, ২০২১

শাহজাহান চৌধুরী শাহীন, কক্সবাজার।।

কক্সবাজার জেলার চকরিয়া উপজেলায় স্বাধীনতার পর এবারই প্রথম ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচনে সর্বোচ্চ ভোট পেয়ে পূর্ব বড় ভেওলা ইউনিয়নে নারী চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন ফারহানা আফরিন মুন্না।
আর এ নির্বাচনে উপজেলার প্রথম নারী চেয়ারম্যান হিসেবে আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকা প্রতিক নিয়ে উপজেলায় সর্বোচ্চ ভোটে জয়লাভ করেন তিনি।
একই ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে তার বিপরীতে স্বতন্ত্র হিসেবে প্রার্থী হন বিএনপি সমর্থিত বর্তমান
আনোয়ারুল আরিফ (ঘোড়া) ও আওয়ামীলীগের বিদ্রোহী কামরুজ্জামান সোহেল ( আনারস), মো. আবদুল্লাহ (চশমা), মো. সালাহ উদ্দিন (মোটরসাইকেল) ও সাইফুল ইসলাম (লাঙ্গল)।
এখানে ভাবি ফারহানা আফরিন মুন্না ডামি প্রতিদ্বন্দ্বী দেবর সালাহ উদ্দিন।
জানা যায়, চকরিয়া উপজেলার পূর্ব বড় ভেওলা ইউনিয়ন থেকে নৌকা প্রতীক নিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছিলেন ফারহানা আফরিন মুন্না । এ ইউনিয়নে স্বাধীনতার পর এবারই এ নির্বাচনে তিনি বিএনপি সমর্থিত প্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যান
আনোয়ারুল আরিফকে হারিয়ে উপজেলার প্রথম নারী চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন।
শুধু পূর্ব বড় ভেওলা ইউনিয়নে নয়, বরং পুরো চকরিয়া উপজেলায় প্রথম আওয়ামী লীগ মনোনীত নারী চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন তিনি। বিষয়টি এখন সাধারণ মানুষের মুখে মুখে। নৌকা প্রতীকে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী হওয়াটাকে আনন্দ ভরেই গ্রহণ করেছিলেন পূর্ব বড় ভেওলা ইউনিয়নের ভোটাররা।
ফারহানা আফরিন মুন্নার স্বামী নাছির উদ্দীন নোবেল চট্টগ্রাম ওমর গণি এমইএস বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ ছাত্র সংসদের সাবেক সমাজ কল্যাণ সম্পাদক, একই কলেজের ছাত্র লীগ নেতা। এছাড়াও মহানগর যুবলীগ ও পূর্ব বড় ভেওলা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ নেতা ছিলেন। ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে নৌকা প্রতীক প্রত্যাশী হয়ে এলাকায় প্রচার প্রচারণা ও এলাকার ভোটারূের কাছে দিনদিন জনপ্রিয় হয়ে উঠেছিলেন। প্রার্থী হওয়ার জেরে একই ইউনিয়ন থেকে নৌকা প্রতীক প্রত্যাশী খলিল উল্লাহ চৌধুরীগণ গত ১৭ আগষ্ট প্রকাশ্য দিবালোকে দিনদুপুরে গুলি করে হত্যা করা হয় নাছির উদ্দীন নোবেলকে।
তাই এবার চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী করেছেন প্রয়াত নেতা নাছির উদ্দীন নোবেলের সহধর্মিণী ফারহানা আফরিন মুন্নাকে। আফরিন মুন্না আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী হওয়ায় চকরিয়া-পেকুয়া সাংসদ জাফর আলম (বিএঅনার্সএমএ), চকরিয়া উপজেলার চেয়ারম্যান ফজলুল করিম সাঈদী, চট্টলবীর প্রয়াত এবিএম মহিউদ্দীন চৌধুরীর সহধর্মিণী চট্টগ্রাম মহানগর মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি হাসিনা মহিউদ্দিন, চকরিয়া পৌরসভা মেয়র আলমগীর চৌধুরী, কক্সবাজার জেলা পরিষদ সদস্য জাহেদুল ইসলাম লিটু, স্থানীয় আওয়ামী লীগ ছাড়াও দলের উপজেলা এবং জেলার নেতারা অংশ নিয়েছেন তার নির্বাচনী প্রচার প্রচারণায়। ২৮ নভেম্বর অনুষ্ঠিত ইউপি নির্বাচনে নৌকা প্রতীক নিয়ে ৬৬৫১ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হন।
তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপি সমর্থিত বর্তমান চেয়ারম্যান আনোয়ারুল আরিফ (ঘোড়া) ৩৯৯৯ ভোট পান।
নব-নির্বাচিত চেয়ারম্যান ফারহানা আফরিন মুন্না বলেন, প্রথমে আমি প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানাই। যিনি নারীদের সর্বক্ষেত্রে অগ্রাধিকার দেন। তিনি চান নারীরাও দেশের উন্নয়নে এগিয়ে আসুক। সেই ধারাবাহিকতায় তিনি আমাকে মনোনয়ন দিয়েছিলেন এবং আমরা বিশাল ব্যবধানে জয়লাভ করেছি। আমি মনে করি এ বিজয় আওয়ামী লীগকে আরও শক্তিশালী করবে।
তিনি বলেন, জনগণ আমাকে নির্বাচিত করেছেন। ইনশাআল্লাহ আমি জনগণের সুখে-দুঃখে পাশে থাকব। অবহেলিত জনগোষ্ঠীর উন্নয়নে কাজ করব।

আমি বিশ্বাস করি এই বিজয়ে নারীরা আরও এক ধাপ এগিয়ে যাবে ও আমার দল শক্তিশালী হবে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ