বৃহস্পতিবার, ১১ অগাস্ট ২০২২, ০৩:০৫ অপরাহ্ন
বিশেষ ঘোষণাঃ
• করোনাভাইরাস প্রতিরোধে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলুন, টিকা নিন। • গুজব নয়, সঠিক সংবাদ জানুন। • দেশের কিছু জেলা, উপজেলা, গুরুত্বপূর্ণ স্থান এবং বিশ্বের কয়েকটি দেশের গুরুত্বপূর্ণ শহরে (খালি থাকা সাপেক্ষে) প্রতিনিধি নিয়োগ দেয়া হবে। • আপনি কি কোন বিশ্ববিদ্যালয়ে 'ফিল্ম ও মিডিয়া, গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা' বিষয়ে পড়ছেন? বাংলাদেশ প্রতিবেদন আপনাকে দিচ্ছে 'ইন্টার্নশিপ'-এর সুযোগ। • আপনিও হতে পারেন সাংবাদিক! চলতি পথে নানা অসঙ্গতি, দুর্নীতি, কারো সফলতা বা যেকোনো ভিন্নধর্মী খবর (ছবি অথবা ভিডিও) পাঠাতে পারেন। • হটলাইনঃ +৮৮০ ১৯ ০৯ ৮৬ ২৬ ১৬ (হোয়াটসঅ্যাপ), • ই-মেইলঃ protibedonbd@gmail.com • গুগল, ফেসবুক ও ইউটিউবে আমাদের পেতে Bangladesh Protibedon লিখে সার্চ দিন।

করমেলা হবে না, নভেম্বর জুড়ে করসেবা

বাংলাদেশ প্রতিবেদন
প্রকাশকালঃ মঙ্গলবার, ২৬ অক্টোবর, ২০২১

কভিড-১৯ মহামারী পরিস্থিতির কারণে এবারো আয়কর মেলা হচ্ছে না। তবে দেশের সকল করাঞ্চলে আগামী নভেম্বর মাসজুড়ে করমেলার পরিবেশে সব ধরনের করসেবা দেয়া হবে বলে জানিয়েছেন জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) চেয়ারম্যান আবু হেনা মো. রহমাতুল মুনিম।

মঙ্গলবার রাজধানীর সেগুনবাগিচায় রাজস্ব ভবন সভাকক্ষে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, ‘করোনা পরিস্থিতির কারণে এবারো আমরা করমেলা করতে পাচ্ছি না। তবে এর পরিবর্তে গত বছরের মতো সকল সার্কেল ও করাঞ্চলে মেলার পরিবেশ নিয়ে আসবো। সেখানে করদাতারা সব ধরনের করসেবা পাবেন।’

নভেম্বর মাসজুড়ে কর সেবা প্রদান উপলক্ষে এনবিআর সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করে।

এনবিআর চেয়ারম্যান বলেন, আমাদের ৩১টি কর অঞ্চলে ৬৪৯টি সার্কেলে গতবারের মতো এবারো ১ থেকে ৩০ নভেম্বর পর্যন্ত আয়কর রিটার্ন গ্রহণ করা হবে। তবে কয়েক জায়গায় বিশেষ সেবা বুথ দেয়া হচ্ছে। যেমন ঢাকায় সরকারি কর্মকর্তাদের জন্য করাঞ্চল ছাড়াও সচিবালয়ে একটি বুথ দেয়া হচ্ছে।

সরকারি চাকরিজীবীরা যাতে তাদের সময় বাঁচাতে পারেন। এ জন্য ১ থেকে ১৪ নভেম্বর পর্যন্ত সচিবালয়ের বুথে সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীরা সেবা পাবেন। এ ছাড়া অফিসার্স ক্লাবেও তারা আয়কর রিটার্ন জমা দিতে পারবেন। সশস্ত্র বাহিনীর সদস্যরা ঢাকা সেনানিবাসে ৯ থেকে ১০ নভেম্বর দু’দিন রিটার্ন জমা দিতে পারবেন। ২৪ নভেম্বর সর্বোচ্চ কর প্রদানকারী ১৪১ জনকে সম্মাননা প্রদান করা হবে।

চলতি অর্থবছরের প্রথম তিন মাসে ৪ লাখের বেশি মানুষ ই-টিআইএন রেজিস্ট্রেশন করেছেন। ২০২০-২১ অর্থবছরে নিবন্ধনের সংখ্যা ছিল ১৩ লাখ। এ পর্যন্ত মোট ৬৭ লাখ ৯২ হাজার ব্যক্তি ই-টিআইএন রেজিস্ট্রেশন নিয়েছেন বলে জানান রহমাতুল মুনিম।

সংবাদ সম্মেলনে এনবিআরের সদস্যবৃন্দ ছাড়াও অন্যান্য জোষ্ঠ কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ