বুধবার, ১৭ অগাস্ট ২০২২, ০২:২১ অপরাহ্ন
বিশেষ ঘোষণাঃ
• করোনাভাইরাস প্রতিরোধে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলুন, টিকা নিন। • গুজব নয়, সঠিক সংবাদ জানুন। • দেশের কিছু জেলা, উপজেলা, গুরুত্বপূর্ণ স্থান এবং বিশ্বের কয়েকটি দেশের গুরুত্বপূর্ণ শহরে (খালি থাকা সাপেক্ষে) প্রতিনিধি নিয়োগ দেয়া হবে। • আপনি কি কোন বিশ্ববিদ্যালয়ে 'ফিল্ম ও মিডিয়া, গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা' বিষয়ে পড়ছেন? বাংলাদেশ প্রতিবেদন আপনাকে দিচ্ছে 'ইন্টার্নশিপ'-এর সুযোগ। • আপনিও হতে পারেন সাংবাদিক! চলতি পথে নানা অসঙ্গতি, দুর্নীতি, কারো সফলতা বা যেকোনো ভিন্নধর্মী খবর (ছবি অথবা ভিডিও) পাঠাতে পারেন। • হটলাইনঃ +৮৮০ ১৯ ০৯ ৮৬ ২৬ ১৬ (হোয়াটসঅ্যাপ), • ই-মেইলঃ protibedonbd@gmail.com • গুগল, ফেসবুক ও ইউটিউবে আমাদের পেতে Bangladesh Protibedon লিখে সার্চ দিন।

শেষ ওভারে দক্ষিণ আফ্রিকাকে হারিয়ে প্রথম ম্যাচেই জয় তুলে নিল অস্ট্রেলিয়া

বাংলাদেশ প্রতিবেদন
প্রকাশকালঃ শনিবার, ২৩ অক্টোবর, ২০২১

টস হেরে ব্যাট করতে নেমে শুরুটা মোটেও ভালো হয়নি প্রোটিয়াদের। পাওয়ার প্লে’র ছয় ওভারে মাত্র ২৯ রান করতেই ৩ উইকেট হারিয়ে ফেলে তারা। অবশ্য ব্যাটিংয়ে নেমে প্রথম ওভারটা দারুণই কেটেছিল দক্ষিণ আফ্রিকার।

মিচেল স্টার্কের করা প্রথম বলেই দুই রান নেন অধিনায়ক টেম্বা বাভুমা। পরে তৃতীয় ও চতুর্থ বলে হাঁকান ব্যাক টু ব্যাক বাউন্ডারি। সেই ওভার থেকে আসে ১১ রান। কিন্তু এই শুরুটা ধরে রাখতে পারেননি প্রোটিয়া অধিনায়ক।

গ্লেন ম্যাক্সওয়েলের করা দ্বিতীয় ওভারের তৃতীয় বলে সরাসরি বোল্ড হয়ে যান ৭ বলে ১২ রান করা বাভুমা। পরের ওভারের প্রথম বলে ইনফর্ম রসি ফন ডার ডুসেনকে কট বিহাইন্ড করেন জশ হ্যাজলউড।

মাত্র ১৬ রানে ২ উইকেট হারানো প্রোটিয়াদের চাপ আরও বাড়ে কুইন্টন ডি ককের অদ্ভুত বোল্ড আউটে। হ্যাজলউডের করা ইনিংসের পঞ্চম ওভারের প্রথম বলটি ছিলো লেগস্ট্যাম্পে খাটো লেন্থের ডেলিভারি। স্কুপ করার চেষ্টায় বল আঘাত হানে ডি ককের থাই প্যাডে।

ডি কক ভেবেছিলেন বল চলে গিয়েছে দূরে, তাই সিঙ্গেল নেয়ার ভঙ্গি করেন তিনি। কিন্তু বল তখন এক ড্রপ করে আঘাত হানে স্ট্যাম্পে, বিদায়ঘণ্টা বেজে যায় ডি ককের। আউট হওয়ার আগে ১২ বল খেলে মাত্র ৭ রান করতে পেরেছেন এ তারকা উইকেটরক্ষক ব্যাটার।

পাওয়ার প্লে’র মধ্যে ৩ উইকেট হারিয়ে ফেলার পর আর ঘুরে দাঁড়ানো সম্ভব হয়নি প্রোটিয়াদের। তবে একপ্রান্ত আগলে ছিলেন এইডেন মারক্রাম। তিনি আউট হন ইনিংসের ১৮ নম্বর ওভারে গিয়ে। মারক্রামের ব্যাট থেকে আসে ৩৬ বলে ৪০ রানের ইনিংস।

এছাড়া হতাশ করেন হেনরিখ ক্লাসেন (১৩), ডেভিড মিলার (১৬), ডোয়াইন প্রিটোরিয়াসরা (১)। শেষদিকে কাগিসো রাবাদা একটি করে চার-ছয়ের মারে ১৯ রান করে দলীয় সংগ্রহ একশ পার করানোর পাশাপাশি সর্বনিম্ন সংগ্রহের রেকর্ডও পার করিয়ে দেন।


অস্ট্রেলিয়ার পক্ষে বল হাতে দুইটি করে উইকেট নিয়েছেন প্যাট কামিনস, অ্যাডাম জাম্পা ও মিচেল স্টার্ক। জশ হ্যাজলউড ও গ্লেন ম্যাক্সওয়েলের শিকার একটি করে উইকেট।

১১৯ রানের লক্ষ্য। আবু ধাবিতে এই ছোট লক্ষ্যে ছুটতে গিয়ে সুবিধা করতে পারছে না অস্ট্রেলিয়াও। দক্ষিণ আফ্রিকাকে ৯ উইকেটে ১১৮ রানে থামানোর পর পাওয়ার প্লেতেই তারা ২ উইকেট হারায় ২৮ রান করে। সতীর্থদের আস্থার প্রতিদান দিতে পারেননি ডেভিড ওয়ার্নার। ৪ রান করে কাগিসো রাবাদার শিকার তিনি। তার আগে আনরিখ নর্টিয়ের বলে শূন্য রানে প্রথম ওভারেই বিদায় নেন অ্যারন ফিঞ্চ। মিচেল মার্শ (১১) আউট হয়েছেন ৩৮ রানে।

দ্রুত ৩ উইকেট হারানোর চাপ সামাল দেওয়া কঠিন হয়ে পড়েছিল অস্ট্রেলিয়ার জন্য। ১০ ওভারে তাদের স্কোরবোর্ডে জমা হয় ৫১ রান। ‍মূলত স্টিভেন স্মিথ ও গ্লেন ম্যাক্সওয়েল দলকে ফেরানোর চেষ্টায় ছিলেন।

কিন্তু ১ রানের ব্যবধানে দুজনকে ফিরিয়ে দক্ষিণ আফ্রিকা অস্ট্রেলিয়াকে বড় ধাক্কা দেয়। ১৫তম ওভারে নর্টিয়ে ৩৫ রানে স্মিথকে এইডেন মার্করামের ক্যাচ বানান। তার সঙ্গে ৪২ রানের জুটি গড়া আরেক সঙ্গী তাবরাইজ শামসির বলে গ্লেন ম্যাক্সওয়েল সুইপ করতে গিয়ে বোল্ড হন ১৮ রান করে। প্রোটিয়া স্পিনার পেয়ে যান তার ৫০তম টি-টোয়েন্টি উইকেট।

এরপর মার্কাস স্টয়নিস ও ম্যাথু ওয়েড দাঁত কামড়ে ক্রিজে পড়ে ছিলেন। তাদের ২৬ বলে ৪০ রানের অপরাজিত জুটি দলকে জয়ের বন্দরে পৌঁছায়। দেখেশুনে ভালো বল মেরেছেন আর প্রয়োজনে ডট দিয়েছেন। ১৯তম ওভারে উইকেট হারাতে বসেছিলেন স্টয়নিস।

বোলার নর্টিয়ে ফিরতি ক্যাচ ছেড়ে দেন। ৬ রানে জীবন পেয়ে ওই ওভারের পঞ্চম বলে চার মেরে স্বস্তি ফেরান স্টয়নিস। শেষ ওভারে ৮ রান দরকার ছিল। স্টয়নিস প্রথম বলে ডাবলস ও দ্বিতীয়টি বাউন্ডারি মারেন। চতুর্থ বলে তার চারে আসে জয়সূচক রান। ১৯.৪ ওভারে ৫ উইকেটে ১২১ রান করে অস্ট্রেলিয়া।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ