মঙ্গলবার, ২৬ অক্টোবর ২০২১, ১০:১৪ অপরাহ্ন
জরুরী ঘোষণাঃ
দেশের কয়েকটি জেলা, উপজেলা, থানা ও গুরুত্বপূর্ণ স্থানে (খালি থাকা সাপেক্ষে) প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে। যোগাযোগঃ ০১৯ ০৯ ৮৬ ২৬ ১৬ হটলাইন। বিশ্বের কয়েকটি দেশের গুরুত্বপূর্ণ শহরে প্রতিনিধি নিয়োগ দেয়া হবে। যোগাযোগঃ +৮৮ ০১৯ ০৯ ৮৬ ২৬ ১৬ হোয়াটসআপ। আপনিও হতে পারেন সাংবাদিক! চলতি পথে নানা অসঙ্গতি, দুর্নীতি, কারো সফলতা বা যে কোনো ব্যতিক্রম খবর পাঠিয়ে দিতে পারেন। ছবি ও ভিডিও থাকলে আরো ভাল। পাঠিয়ে দিন আমাদের এই ঠিকানায়: protibedonbd@gmail.com • আপনি কি কোনো বিশ্ববিদ্যালয়ে সাংবাদিকতায় পড়শুনা করছেন? বাংলাদেশ প্রতিবেদন আপনাকে দিচ্ছে ‘ইন্টার্নশিপ’ এর সুযোগ। আজই যোগাযোগ করুন। করোনা থেকে বাঁচতে, স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলুন।

বগুড়ায় প্রধান শিক্ষকের দাঁত ফেলে দেয়ার প্রতিবাদে গাজীপুরে মানববন্ধন

মোহাম্মদ মনজুরুল হক গাজী / ৪৭ /২০২১
প্রকাশকালঃ মঙ্গলবার, ১২ অক্টোবর, ২০২১

বগুড়ায় প্রধান শিক্ষকের দাঁত ফেলে দেয়ার প্রতিবাদে গাজীপুরে মানববন্ধন

বগুড়ার নন্দীগ্রামে একটি স্কুলে প্রধান শিক্ষক নিয়োগের বিরোধিতার জেরে ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষকের স্বামীকে মারধর করে দাঁত ফেলে দেয়ার অভিযোগে ওই স্কুল কমিটির সভাপতির বিরুদ্ধে গাজীপুরে মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।
মঙ্গলবার (১২অক্টোবর) সকালে বাংলাদেশ মাধ্যমিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্রধান পরিষদ, গাজীপুর জেলা শাখার উদ্যোগে গাজীপুর প্রেসক্লাবের সামনে এ মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত হয়।
সংগঠনটির গাজীপুর জেলা শাখার সভাপতি হাড়িনাল উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো.আক্তার হোসেনের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক মো. আবুল কালাম আজাদের সঞ্চালনায় প্রতিবাদ সভায় বক্তব্য রাখেন কাপাসিয়া উপজেলা শাখার সভাপতি মো.সাইফুল ইসলাম, কাপাসিয়ার হাইলজোরের ইউনিয়ন উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. শহিদুল্লাহ আজাদ, গাজীপুর মহানগরের মফিজউদ্দিন খান উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আসমা আক্তার, কাপাসিয়ার ভাকোয়াদী উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আব্দুল হালিম সরকার, শ্রীপুর উপজেলার প্রতাপপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. রজব আলী, গাজীপুর সদর উপজেলার সভাপতি মো. আবুল হোসেন মোড়ল, কালীগঞ্জ উপজেলার নরুন উচ্চ বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক মো. শফিকুল ইসলাম প্রমূখ।
প্রতিবাদ সভায় হাড়িনাল উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. আক্তার হোসেন বলেন, আহত ও লাঞ্চিত প্রধান শিক্ষকের স্ত্রী মঞ্জুয়ারা বেগম হলেন কোশাস উচ্চ বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক। আর কোশাস বিদ্যালয়ের সভাপতি হলেন শামিম হোসেন লিটন। গত বৃহস্পতিবার সকাল ১১ টায় কোশাস উচ্চ বিদ্যালয়ে প্রধান শিক্ষক নিয়োগ নিয়ে ম্যানেজিং কমিটির সভা বসে। সভায় কোশাস উচ্চ বিদ্যালয়ের সভাপতি শামিম তার স্কুলের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক মঞ্জুয়ারাকে সভাপতির দেওয়া তালিকা অনুযায়ী কাজ করতে চাপ দেন। কিন্তু মঞ্জুয়ারা তাতে রাজি না হলে শামিম উত্তেজিত হয়ে নোটিশ খাতা ছিড়ে ফেলেন ও বিদ্যালয় থেকে চলে যান। ওই দিন সন্ধ্যায় তার স্বামী স্থানীয় ভর তেতুলিয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক সাজ্জাদুল ইসলাম দুদু (৫৫) স্থানীয় পন্ডিত পুকুর বাজারে চা খেতে যান। ওই সময় বাজারে কোশাস উচ্চ বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি শামিম তার নিজ দোকানে সাজ্জাদুলকে ডেকে নিয়ে মারধর করতে থাকেন। এতে করে তার সামনের তিনটি দাঁত পড়ে যায়। পরে তাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

গাজীপুরের এ প্রতিবাদ সভায় বক্তারা বগুড়ার ঐ স্কুল কমিটির সভাপতিকে কমিটি থেকে অব্যহতি ও গ্রেপ্তার করে আইনের আওতায় আনার দাবী জানিয়েছেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ

Categories