শনিবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৮:০১ অপরাহ্ন
জরুরী ঘোষণাঃ
দেশের কয়েকটি জেলা, উপজেলা, থানা ও গুরুত্বপূর্ণ স্থানে (খালি থাকা সাপেক্ষে) প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে। যোগাযোগঃ ০১৯ ০৯ ৮৬ ২৬ ১৬ হটলাইন। বিশ্বের কয়েকটি দেশের গুরুত্বপূর্ণ শহরে প্রতিনিধি নিয়োগ দেয়া হবে। যোগাযোগঃ +৮৮ ০১৯ ০৯ ৮৬ ২৬ ১৬ হোয়াটসআপ। আপনিও হতে পারেন সাংবাদিক! চলতি পথে নানা অসঙ্গতি, দুর্নীতি, কারো সফলতা বা যে কোনো ব্যতিক্রম খবর পাঠিয়ে দিতে পারেন। ছবি ও ভিডিও থাকলে আরো ভাল। পাঠিয়ে দিন আমাদের এই ঠিকানায়: protibedonbd@gmail.com • আপনি কি কোনো বিশ্ববিদ্যালয়ে সাংবাদিকতায় পড়শুনা করছেন? বাংলাদেশ প্রতিবেদন আপনাকে দিচ্ছে ‘ইন্টার্নশিপ’ এর সুযোগ। আজই যোগাযোগ করুন। করোনা থেকে বাঁচতে, স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলুন।

দেড় বছর পর স্কুলে শিক্ষার্থীরা, উৎসব মুখর পরিবেশে শ্রেণীকক্ষে প্রবেশ

/ ১৮ /২০২১
প্রকাশকালঃ রবিবার, ১২ সেপ্টেম্বর, ২০২১

দেড় বছর পর স্কুলে শিক্ষার্থীরা, উৎসব মুখর পরিবেশে শ্রেণীকক্ষে প্রবেশ।

মো:জুয়েল রানা, তিতাসঃ

প্রায় দেড় বছর পর মহামারি করোনাভাইরাসের সংক্রমণ কমায় আজ রবিবার শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খুলে দেওয়ায় সারা দেশের মতো কুমিল্লার তিতাসে শিক্ষক, শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের মধ্যে ব্যাপক উৎসাহ-উদ্দীপনা বিরাজ করছে।

রবিবার সকলে উপজেলা মাছিমপুর আর আর ইনস্টিটিউটশনে গিয়ে দেখা যায়, উৎসব মুখর পরিবেশে শিক্ষার্থীরা তাদের শ্রেণীকক্ষে প্রবেশ করে। এ সময় তাদেরকে শিক্ষকরা ফুল দিয়ে বরণ করে নেয়। তার আগে স্কুল প্রবেশ পথ গেইটে শিক্ষার্থীদের তাপমাত্রা মেপে প্রবেশ করানো হয়। তাদের হ্যান্ড স্যানিটাইজার ব্যবহার ও হাত ধোয়ার ব্যবস্থা করা হয় এবং স্থাস্থবিধি সর্ম্পকে বিদ্যালয়ে ফেষ্টুন ও প্লাকার্ড দেয়া হয়েছে। স্বাস্থ্যবিধি মেনে মুখে মাস্ক পরে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে এসেছে শিক্ষার্থীরা। তাদের পরনে সেই চিরচেনা স্কুল ড্রেস, কাঁধে বইয়ের ব্যাগ।

তবে সহপাঠীদের সঙ্গে আগের মতো হইহুল্লোড় দেখা না গেলেও কিছুটা লক্ষ করা গেছে। শিক্ষকদের নির্দশনা মোতাবেক প্রতি ক্লাস রুমে ৩ ফুট দূরত্বে ক্লাসে বেঞ্চে শিক্ষার্থীরা বসে। এবং যাথাসময় শিক্ষার্থীদের শ্রেণীকক্ষে সশরীরে পাঠদান শুরু হয়েছে। এতে ছাত্রছাত্রী ও অভিভাবকদের মাঝে স্বস্তি নেমে আসে।

দশম শ্রেণির ছাত্রী আখিনুর আক্তার বলেন, অনেকদিন পর স্কুলে আসায় বেশ আনন্দ হচ্ছে। স্কুলে প্রথম আসার মতো আনন্দ পাচ্ছি। দীর্ঘদিন বাসায় থেকে বিরক্ত হয়ে গিয়েছিল।

বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মাহফুজুর রহমান চৌধুরী বলেন, ‘স্বাস্থ্যবিধির বিষয়ে শিক্ষার্থীদের আগেই নির্দেশনা দেওয়া হয়েছিল। শিক্ষার্থীদের আজকে তারা স্বাস্থ্যবিধি মেনে বিদ্যালয়ে এসেছে। সবাই যেন স্বাস্থ্যবিধি মানেন, তা নিশ্চিত করতে আমাদের পক্ষ থেকে ব্যবস্থা নিয়েছি। সামাজিক দূরত্ব মেনে শিক্ষার্থীদের ক্লাসরুমে ঢুকতে দেওয়া হয়েছে এবং শিক্ষার্থীদের মনে যেন করোনার ভয় না থাকে, সেজন্যে শিক্ষকরা আজকে অনুপ্রেরণামূলক ক্লাস নেবেন।’

উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা এটিএম মোর্শেদ বলেন, উপজেলার বিভিন্ন স্কুল, কলেজ ও মাদ্রাসা মাধ্যমিক ও পরিদর্শন করেছি এবং প্রতিটি প্রতিষ্ঠান প্রধানকে শিক্ষার্থীদের শতভাগ স্বাস্থ্য সুরক্ষা সামগ্রী নিশ্চিত করার নির্দেশনা দিয়েছি।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ

Categories