শনিবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৬:৫৩ অপরাহ্ন
জরুরী ঘোষণাঃ
দেশের কয়েকটি জেলা, উপজেলা, থানা ও গুরুত্বপূর্ণ স্থানে (খালি থাকা সাপেক্ষে) প্রতিনিধি নিয়োগ চলছে। যোগাযোগঃ ০১৯ ০৯ ৮৬ ২৬ ১৬ হটলাইন। বিশ্বের কয়েকটি দেশের গুরুত্বপূর্ণ শহরে প্রতিনিধি নিয়োগ দেয়া হবে। যোগাযোগঃ +৮৮ ০১৯ ০৯ ৮৬ ২৬ ১৬ হোয়াটসআপ। আপনিও হতে পারেন সাংবাদিক! চলতি পথে নানা অসঙ্গতি, দুর্নীতি, কারো সফলতা বা যে কোনো ব্যতিক্রম খবর পাঠিয়ে দিতে পারেন। ছবি ও ভিডিও থাকলে আরো ভাল। পাঠিয়ে দিন আমাদের এই ঠিকানায়: protibedonbd@gmail.com • আপনি কি কোনো বিশ্ববিদ্যালয়ে সাংবাদিকতায় পড়শুনা করছেন? বাংলাদেশ প্রতিবেদন আপনাকে দিচ্ছে ‘ইন্টার্নশিপ’ এর সুযোগ। আজই যোগাযোগ করুন। করোনা থেকে বাঁচতে, স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলুন।

কাপাসিয়ায় অজ্ঞাত রোগে ৪ জনের মৃত্যু

মাহাবুর রহমান, গাজীপুর!! / ৪৫ /২০২১
প্রকাশকালঃ বুধবার, ১ সেপ্টেম্বর, ২০২১

কাপাসিয়ায় অজ্ঞাত রোগে ৪ জনের মৃত্যু

 

গাজীপুরের কাপাসিয়ায় অজ্ঞাত রোগে ৪ জনের মৃত্যু হয়েছে। শ্বনাক্ত করা যায়নি রোগের কারণ।

গত রোববার ও মঙ্গলবার উপজলার দুর্গাপুর ইউনিয়নের ঘিঘাট ও একঢালা এলাকায় এমন হঠাৎ মৃত্যুর সংবাদে আতঙ্কে পুরো এলাকা। এই রোগে একই পরিবারের ৩ জনসহ মোট ৪ জনের মৃত্যু হয়েছে বলে জানাগেছে।

স্থানীয়রা জানান, গাজীপুরের কাপাসিয়ার ঘিঘাট এলাকার তাজউদ্দিনের ছেলে আমজাদ হোসেন (৩৫) রোববার দুপুরে হঠাৎ ছটফট করে মাটিতে লুটিয়ে পড়েন। স্থানীয়রা দ্রুত তাকে কাপাসিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত বলে ঘোষণা করেন।

একদিন পর মঙ্গলবার দুপুরে আমজাদ হোসেনের আড়াই বছর বয়সী ছেলে তামিম হোসেন একই অবস্থায় মারা যায়। এমনকি ওই বাড়ির হাঁস, মুরগি ও কবুতর মারা যায়। ওই দিন সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে আমজাদ হোসেনের মা সাফিয়া বেগম (৫৫) একই রোগে আক্রান্ত হয়ে মারা যান। এর ঠিক দুই ঘণ্টা পর রাত ৯টার দিকে কাপাসিয়া উপজেলার একঢালা এলাকার নুরুল হকের স্ত্রী আছমা বেগম (৪০) একই রোগে আক্রান্ত হয়ে মারা যান।

জানা যায়, আছমা বেগম আমজাদ হোসেনের নিকটাত্মীয়। আমজাদের মৃত্যুর দিন তিনি ওই বাড়িতেই অবস্থান করছিলেন। একই বাড়ির তিনজনসহ ৪ জনের মৃত্যুতে এলাকায় চরম আতঙ্ক বিরাজ করছে। অজ্ঞাত রোগে মৃত্যুর আতঙ্কে আশপাশের বাড়ির লোকজনও গরু, ছাগল, হাঁস-মুরগি নিয়ে বাড়ি ছেড়ে অবস্থান নিচ্ছেন অন্যত্রে।

কাপাসিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা আব্দুস সালাম সরকার জানিয়েছেন, আতঙ্কের কিছুই নেই। স্বাভাবিক মৃত্যু হয়েছে তাদের। তবে ধারণা করা হচ্ছে- মৃগী রোগের কারণে তাদের মৃত্যু হয়েছে।

ইউএনও মোসা. ইসমত আরা বলেন, অল্প সময়ের ব্যবধানে একই বাড়ির তিনজনসহ পাশের গ্রামে আরও একজন লোক মারা যাওয়ায় কিছুটা আতঙ্ক বিরাজ করছে এলাকায়। তবে আতঙ্কিত হওয়ার কিছুই নেই। তাদের স্বাভাবিক মৃত্যুই হয়েছে। স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান ও মেম্বারদের আশপাশের লোকজন যাতে আতঙ্কিত না হয় তার জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ

Categories