বৃহস্পতিবার, ১১ অগাস্ট ২০২২, ০২:৩৩ অপরাহ্ন
বিশেষ ঘোষণাঃ
• করোনাভাইরাস প্রতিরোধে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলুন, টিকা নিন। • গুজব নয়, সঠিক সংবাদ জানুন। • দেশের কিছু জেলা, উপজেলা, গুরুত্বপূর্ণ স্থান এবং বিশ্বের কয়েকটি দেশের গুরুত্বপূর্ণ শহরে (খালি থাকা সাপেক্ষে) প্রতিনিধি নিয়োগ দেয়া হবে। • আপনি কি কোন বিশ্ববিদ্যালয়ে 'ফিল্ম ও মিডিয়া, গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা' বিষয়ে পড়ছেন? বাংলাদেশ প্রতিবেদন আপনাকে দিচ্ছে 'ইন্টার্নশিপ'-এর সুযোগ। • আপনিও হতে পারেন সাংবাদিক! চলতি পথে নানা অসঙ্গতি, দুর্নীতি, কারো সফলতা বা যেকোনো ভিন্নধর্মী খবর (ছবি অথবা ভিডিও) পাঠাতে পারেন। • হটলাইনঃ +৮৮০ ১৯ ০৯ ৮৬ ২৬ ১৬ (হোয়াটসঅ্যাপ), • ই-মেইলঃ protibedonbd@gmail.com • গুগল, ফেসবুক ও ইউটিউবে আমাদের পেতে Bangladesh Protibedon লিখে সার্চ দিন।

ছন্দ হারিয়েছে প্রশান্ত পাড়ের সিডনি

মোশারফ হোসেন নির্জন, অস্ট্রেলিয়া
প্রকাশকালঃ বুধবার, ২৮ জুলাই, ২০২১

ছন্দ হারিয়েছে প্রশান্ত পাড়ের সিডনি

সংক্রমনের লাগাম যেন টেনে ধরতে পারছে না সিডনি তাই বাধ্য হয়েই আবারো ধরা দিলো লকডাউনের জালে। তিস সংখ্যার দৈনিক সংক্রমন নিয়ে যেন ছন্দ হারিয়েছে প্রশান্ত পাড়ের এই শহরটি। জুনের শেষ সপ্তাহ থেকে গুনে গুনে ঘরবন্দির হিসেব কষছিলেন বাসিন্দারা; এভাবেই গেল চলন্ত মাসটি, আবারও সঙ্গি হচ্ছে আগষ্ট মাসও। বাড়ছে বেকারত্বের সংখ্যা, তবে থেমে নেই প্রণোদনা।

আজকের রেকর্ড বুকে নতুন ১৭৭টি কভিড আক্রান্ত সংখ্যা বাড়িয়ে লকডাউনেই মুক্তি খুজে নিল মরিসন সরকার। অর্থাৎ আগামী ২৮শে আগষ্ট পর্যন্ত ঘরবন্দি হয়ে স্বান্তনা খুজতে হবে গ্রেটার সিডনিবাসীদের। সেই সাথে প্রতিবেশী প্যারামাটা, ক্যাম্পবেলটাউন, এবং জর্জেস রিভার এলাকাকেও কঠোর বিধি নিষেধের স্বাক্ষী হতে হচ্ছে।

সিডনির এই চিত্র প্রভাব ফেলেছে অর্থনীতিতেও। লাফিয়ে বাড়ছে বেকারত্বের হার। সম্প্রতি শহরটির উ্ন্নয়ন কাজ বন্ধ ঘোষণায় প্রায় আড়াই লাখ নির্মাণ-শ্রমিক বেকার হয়ে পড়ে। যার ফলে ‍ শহরটিকে প্রায় একশো চল্লিশ কোটি ডলার ক্ষতির সম্মুখিন হতে হবে।

শুধু তাই নয় শিক্ষার্থী সহ সাধারণ মানুষও কর্মহীন হয়ে পড়ছে।সরকারের হিসেবানুসারে লকডাউন কার্যকর করায় সিডনি প্রতিদিন প্রায় ১৮০ মিলিয়ন ডলার হারিয়ে ফেলছে। তবে সরকার পাশে আছে অর্থ সাহায্য নিয়ে। প্রধানন্ত্রী স্কট মরিসন এক ঘোষণায় জানান, অস্ট্রেলিয় নাগরিক যারা সপ্তাহে বিশ ঘন্টারও কম কাজ করতে পারছে তাদের ৭৫০ ডলার ও যারা চল্লিশ ঘন্টার কম অর্থাৎ বিশ ঘন্টার বেশী কাজ করছে তারা প্রতি সপ্তাহে ৩৭৫ ডলার আর্থিক সহয়তার আওয়ায় আসবে। এই অনুদানের জন্য কেন্দ্র থেকে প্রতি সপ্তাহ ৭৫০ মিলিয়ন ডলার বরাদ্ধ দেওয়া হয়েছে। যেটিকে জব-সেভার নাম করণকরা হয়েছে।
এদিকে কুইন্সল্যান্ড ও ভিক্টোরিয়া রাজ্যেও নতুন সংক্রমন অব্যাহত আছে। এমতাবস্থায় অস্ট্রেলিয়া সরকার দেশটির বর্ডার সহসাই খুলছে না। আপাতত ঘর সামলাতে ব্যস্ত দেশটির নীতি নির্ধারকরা।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ