বুধবার, ১৭ অগাস্ট ২০২২, ১২:৩৯ অপরাহ্ন
বিশেষ ঘোষণাঃ
• করোনাভাইরাস প্রতিরোধে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলুন, টিকা নিন। • গুজব নয়, সঠিক সংবাদ জানুন। • দেশের কিছু জেলা, উপজেলা, গুরুত্বপূর্ণ স্থান এবং বিশ্বের কয়েকটি দেশের গুরুত্বপূর্ণ শহরে (খালি থাকা সাপেক্ষে) প্রতিনিধি নিয়োগ দেয়া হবে। • আপনি কি কোন বিশ্ববিদ্যালয়ে 'ফিল্ম ও মিডিয়া, গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা' বিষয়ে পড়ছেন? বাংলাদেশ প্রতিবেদন আপনাকে দিচ্ছে 'ইন্টার্নশিপ'-এর সুযোগ। • আপনিও হতে পারেন সাংবাদিক! চলতি পথে নানা অসঙ্গতি, দুর্নীতি, কারো সফলতা বা যেকোনো ভিন্নধর্মী খবর (ছবি অথবা ভিডিও) পাঠাতে পারেন। • হটলাইনঃ +৮৮০ ১৯ ০৯ ৮৬ ২৬ ১৬ (হোয়াটসঅ্যাপ), • ই-মেইলঃ protibedonbd@gmail.com • গুগল, ফেসবুক ও ইউটিউবে আমাদের পেতে Bangladesh Protibedon লিখে সার্চ দিন।

আখাউড়ায় বিয়ে বন্ধ করে দিলেন ইউএনও

বাংলাদেশ প্রতিবেদন
প্রকাশকালঃ সোমবার, ২৬ জুলাই, ২০২১

আখাউড়ায় বিয়ে বন্ধ করে দিলেন ইউএনও।

মো:আশরাফুল আলম আসিফ
আখাউড়া (ব্রাহ্মণবাড়িয়া) প্রতিনিধিঃ-

করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ রোধে চলমান কঠোর লকডাউনে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়ায় প্রশাসনের হস্তক্ষেপে বাল্য বিয়ে থেকে রক্ষা পেল ৮ম শ্রেণীর এক শিক্ষার্থী।

সোমবার দুপুরে আখাউড়া উপজেলার ধরখার ইউনিয়নের রুটি গ্রামে দুবাই প্রবাসী সুহেল মিয়ার ৮ম শ্রেণী পড়–য়া মেয়ের বিয়ের আয়োজন চলাকালে উপজেলা নির্বাহী অফিসার রোমানা আক্তার ঘটনাস্থলে গিয়ে বিয়ে বন্ধ করে দেন।

এসময় বর ও কনে পক্ষকে বাল্য বিয়ে আয়োজন করায় ১০ হাজার টাকা জরিমানা করে ভ্রাম্যমান আদালত। কনে নূরপুর-রুটি আব্দুল হক উচ্চ বিদ্যালয়ের ৮ম শ্রেণীর ছাত্রী এবং বর একই বিদ্যালয়ের ১০ম শ্রেণীর ছাত্র।

জানা গেছে, সোমবার দুপুরে রুটি গ্রামের প্রবাসী সুহেল মিয়ার মেয়ের সঙ্গে একই গ্রামের আব্দুর রউফ মিয়ার ছেলে জুনায়েদ বাবু বিয়ের আয়োজন করা হয়। বেলা দেড়টার দিকে বর নিয়ে কনের বাড়িতে আসেন বরপক্ষের অর্ধশত লোক।

বরযাত্রীদের খাবার টেবিলে বসানো হয় ভুরিভূজের জন্য। বিয়ে বাড়িতে তখন এক আনন্দঘন মুহুর্ত। এমন সময় খবর পেয়ে পুলিশ নিয়ে কনের বাড়িতে পৌঁছেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট রুমানা আক্তার।

পরে তিনি স্থানীয় ইউপি সদস্য আমিনুল ইসলাম এবং ওই বিদ্যালয় ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি মোঃ আশরাফুল আলমের উপস্থিতিতে বর-কনের জন্মনিবন্ধন যাচাই করে বয়স না হওয়ায় বিয়ে বন্ধ করে দেন। বর-কনের সঠিক বয়স না হওয়া পর্যন্ত বিয়ে দিবেন না বলে মুচলেকা দেন তাদের অভিভাবকরা।
আখাউড়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার রুমানা আক্তার বলেন, লকডাউনের মধ্যে অপ্রাপ্ত বয়স্ক ছেলে-মেয়ের বিয়ের আয়োজন চলছিল খবর পেয়ে কনের বাড়িতে উপস্থিত হয়ে সত্যতা পাই। বরপক্ষের উপস্থিতিতে খাবারের আয়োজন করা হয়। বিয়ে হওয়া বাকী ছিল। স্থানীয় লোকজনের উপস্থিতিতে বর-কনে পক্ষকে বুঝিয়ে প্রাপ্ত বয়স্ক না হওয়া পর্যন্ত বিয়ে হবে এই মর্মে তারা মুচলেকা দেয়। উভয় পক্ষকে ১০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।

এসময় উপস্থিত ছিলেন আখাউড়া উপজেলা প্রকল্প কর্মকর্তা তাপস চক্রবর্তী, উপজেলা সহকারী প্রকৌশলী জহুরুল ইসলাম প্রমুখ।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ