বুধবার, ২৩ জুন ২০২১, ০৫:০০ পূর্বাহ্ন

সাতক্ষীরায় সাত দিনের লকডাউন: হাট-বাজার ৩ ঘন্টা ও ভোমরা পোর্ট ৮ ঘণ্টা খোলা

/ ৫৮ /২০২১
প্রকাশকালঃ শনিবার, ৫ জুন, ২০২১

সাতক্ষীরায় সাত দিনের লকডাউন: হাট-বাজার ৩ ঘন্টা ও ভোমরা পোর্ট ৮ ঘণ্টা খোলা

সাতক্ষীরা থেকে আব্দুর রহিম:
আজ ৫ মে (শনিবার) রাত ১২ টা ১ মিনিট থেকে বাংলাদেশের সর্ব দক্ষিণ-পশ্চিম কোণে অবস্থিত সুন্দরবন ঘেষা জেলা সাতক্ষীরাতে লকডাউন শুরু হয়েছে।

সাতক্ষীরা জেলাব্যাপী লকডাউন চলাকালে জেলার সর্বত্রে কিছু ব্যতিক্রম ছাড়া সবকিছু বন্ধ থাকবে।

এ সংক্রান্ত জেলা প্রশাসক এস এম মোস্তফা কামাল গণবিজ্ঞপ্তি জারি করেছেন।

গণবিজ্ঞপ্তি অনুযায়ী, রাত ১২ টা ১ মিনিট থেকে সকল প্রকার যান চলাচল বন্ধ থাকবে।

জেলার সকল রুটে অ্যাম্বুলেন্স এবং জরুরি সেবা দানের ক্ষেত্রে এ আদেশ প্রযোজ্য হবে না। সাপ্তাহিক হাট বাজার, গরুর হাট বন্ধ থাকবে।

শুধুমাত্র ঔষধের দোকান ছাড়া সকল ধরনের দোকান পাট,শপিংমল বন্ধ থাকবে।

হোটেল-রেস্তোরাঁ,নিত্য প্রয়োজনীয় পণ্যের দোকানপাট, কাঁচাবাজার যথাযথ স্বাস্থ্য বিধি অনুসরণ করে সকাল ৯ টা থেকে দুপুর ১২টা পর্যন্ত খোলা থাকবে।

তবে হোটেল-রেস্তোরাঁ ও খাবারের দোকান কেবল খাদ্য বিক্রিয় সরবরাহ করা যাবে। প্রয়োজন ব্যতীত কেউ এসব স্থানে যেতে ও জনসমাগম করতে পারবেনা।

নির্ধারিত আমের আড়ৎ বাজার থেকে আড়ৎদার দের মাধ্যমে বিক্রয় করা যাবে। বাজার থেকে আম ট্রাকে করে প্রেরণ করা যাবে। এছাড়া কুরিয়ার সার্ভিসের মাধ্যমে পরিবহন চালু থাকবে। উপজেলা প্রশাসন এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় উদ্যোগ গ্রহণ করবেন।

জরুরী প্রয়োজনে চলাচলে সকলকে বাধ্যতামূলকভাবে মাক্স পরিধান করতে হবে।

ভোমরা স্থল বন্দরের সকল দোকানপাট বন্ধ থাকবে। তবে ভোমরা স্থলবন্দরের কার্যক্রম সকাল ৮ টা থেকে বেলা ২ টা পর্যন্ত চালু থাকবে।

জেলাব্যাপী ব্যাপক হারে সংক্রমণ বৃদ্ধি পাওয়ায় করোনার ভারতীয় ভেরিয়েন্ট প্রতিরোধে সীমান্তে বিজিবি’র অভিযান অব্যাহত আছে।

ইন্ডিয়া বর্ডার অতিক্রম করে বাংলাদেশ সীমান্তে চোরাই পথে আসা ২৯ জনকে আটক করেছে বিজিবি। এ পর্যন্ত সাতক্ষীরায় ৪৯ জন করোনা রোগীর মৃত্যু হয়েছে।

বিজেপি দীর্ঘ অভিযান শুরু করেছে। ২০৪ কিলোমিটার সীমানার মধ্যে মাত্র ৩৬ কিলোমিটার সীমানা বেড়া রয়েছে। বাকিগুলো উন্মুক্ত স্থল এবং জলপথ।

আন্তঃজেলা বাস চলাচল বন্ধ আছে।
সাতক্ষীরা নিউমার্কেট এলাকা,কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনাল,সদর হাসপাতাল মোড়,মেডিকেল কলেজ মোড়, আলিপুর চেকপোস্ট, কদমতলা বাজার ইত্যাদি সরে জমিন ঘুরে দেখা গেছে, সকল দোকানপাট বন্ধ আছে। শহরে জনসমাগম একেবারেই নেই। শহরের বিভিন্ন পয়েন্টে পুলিশ টহল দিতে দেখা গেছে। এছাড়াও জেলার ৮টি উপজেলার ৭৮টি ইউনিয়নের

৭ দিনের লকডাউন আজকের প্রথম দিনে দেখা গেছে, জেলার সার্বিক চিত্র স্বাভাবিক অবস্থায় আছে। অধিকাংশই মানুষদেরকে মুখে মাক্স পড়া অবস্থা দেখা যাচ্ছে‌।

৭ দিন লকডাউন শেষ হওয়ার পর পরবর্তী কোন লকডাউন হবে কি-না এ বিষয়ে পরবর্তীতে বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে জানানো হবে বলে জানা গেছে।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ

বাংলাদেশে করোনা ভাইরাস

সর্বমোট

আক্রান্ত
৮৬১,১৫০
সুস্থ
৭৮৮,৩৮৫
মৃত্যু
১৩,৭০২
সূত্র: আইইডিসিআর

সর্বশেষ

আক্রান্ত
৪,৮৪৬
সুস্থ
২,৯০৩
মৃত্যু
৭৬
স্পন্সর: একতা হোস্ট

Categories