রবিবার, ১৬ মে ২০২১, ০৪:০৩ অপরাহ্ন

সিএনজি-অটো চালকদের সচেতনতা সৃষ্টিতে আখাউড়া পুলিশের কার্যক্রম শুরু

মোঃ আশরাফুল আলম আসিফ আখাউড়া (ব্রাহ্মণবাড়িয়া) প্রতিনিধি / ২১ /২০২১
প্রকাশকালঃ রবিবার, ২ মে, ২০২১

সিএনজি-অটো চালকদের সচেতনতা সৃষ্টিতে আখাউড়া পুলিশের কার্যক্রম শুরু

সিএনজি/অটো চালক শ্রমিকদের নিরাপত্তার বিষয়ে সচেতন করে তুলতে আখাউড়া থানা পুলিশ সপ্তাহ ব্যাপি সচেতনতা সৃষ্টিমূলক বিশেষ কার্যক্রম শুরু করেছে।

২ মে থানার বিটের দায়িত্বপ্রাপ্ত অফিসাররা নিজ নিজ এলাকার জনপ্রতিনিধি ও নেতৃবৃন্দদের সাথে নিয়ে সিএনজি অটো রিক্সা স্ট্যান্ড গুলোতে গমন করে চালক শ্রমিকদের সচেতন করতে মোটিভেশনাল কার্যক্রম ও প্রচারণা চালান এবং লিফলেট বিতরন করেন। সিএনজি-অটো গাড়ীর চুরি-ছিনতাই প্রতিরোধে চালক-শ্রমিকদের মধ্যে সচেতনতা সৃষ্টির কোন বিকল্প নাই। আসন্ন ঈদ’কে সামনে রেখে শহর ছেড়ে মানুষ গ্রামমুখো হবে।

সিএনজি-অটো চালকরাও এসময় দিনে রাতে-বিরাতে কিছু ট্রিপ বেশী মেরে কয়টা টাকা বেশী কামাতে চাইবে। এতে ঈদে প্রিয়জনের মুখে হাসি ফোটানোর অনন্ত চেষ্টা সবার। ভালভাবে ঈদ করতে কে না চায়! যেমন অটো শ্রমিক চায় দুটো ট্রিপ বেশী মারতে পারলে বেশি রোজগার হবে, তেমনি অটো ছিনতাইকারী সংঘবদ্ধ ভদ্রবেশি অপরাধীরাও যাত্রী বেশে ঘাপটি মেরে অটোটি ছিনিয়ে নিতে সুযোগের অপেক্ষায় থাকবে।

এ খাতের অপরাধী যারা পূর্বে পুলিশের হাতে ধরা পড়েছে তাদের জিজ্ঞাসাবাদে জানা গেছে অটো চুরি বা ছিনতাই করে নেয়া যেমন সহজ, তেমনি কাগজপত্র না থাকলেও ব্যাপক চাহিদা থাকায় এটা বিক্রি করাও সহজ। সচেতনতার অভাবে কিছু মানুষ কম মূল্যে অটোর মালিক হতে ব্যাকুল থাকেন। কিন্তু যে অটোটি কিনছে, সেটার কাগজপত্র ঠিক আছে কিনা এসব বিষয়ে খোঁজ নেন না। আখাউড়া থানা পুলিশ আজ ২ মে সকাল থেকে উপজেলার সর্বত্র সিএনজি/অটো স্ট্যান্ডসমূহে গিয়ে স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের সাথে নিয়ে সিএনজি অটো শ্রমিকদের সচেতন করতে লিফলেট বিতরণের পাশাপাশি নিরাপত্তার বিষয়ে বিভিন্ন পরামর্শ প্রদান করে। সিএনিজ অটো চালক শ্রমিকদের সচেতন করেত স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ ও সাংবাদিকদের সহযোগীতায় আগামী সাতদিন এই সচেতনামূলক কার্যক্রম অব্যাহত রাখবে।

সচেতনামূলক প্রচার অভিযানের মূল বিষয়বস্তু হচ্ছে- ১. সন্দেহজনক ও অপরিচিত যাত্রী নিয়ে রিজার্ভ ভাড়ায় বা বেশী ভাড়ার লোভে পড়ে কোথাও না যাওয়া। ষ্ট্যান্ডের আওতায় নিজের পরিচিত রুটের বাইরে বা নির্জন/অপরিচিত স্থানে যাত্রী নিয়ে গমণ না করা।

২. প্রয়োজনে নিজের মুভমেন্ট ষ্ট্যান্ড লাইনম্যান বা পরিচিতদের সবসময় জানিয়ে এবং সম্ভব হলে ষ্ট্যান্ডভিত্তিক যাত্রীদের ছবী তুলে রাখা। ৩. রাত্রীবেলায় জরুরী প্রয়োজন ব্যাতীত গাড়ী নিয়ে যথাসম্ভব বের না হওয়া। ৪. ভালমত কাগজপত্র যেমন শোরুমের সেলস রিসিপ্ট ও ইমপোর্ট সংক্রান্ত ডকুমেন্টস ইত্যাদি চেক না করে এবং উক্ত গাড়ীটি চোরাই নয় তা নিশ্চিত না হয়ে এসব সিএনজি-অটো ক্রয় না করা। ৫. রাত্রী বেলায় সিএনজি- অটোটি নিরাপদ গ্যারেজ/স্থানে বা তালাবদ্ধ ঘরে রাখা। ৬. কোনো যাত্রীর আচরণ সন্দেহজনক মনে হলে সাথে সাথে আখাউড়া থানার নম্বরঃ ০১৩২০১১৫১৬৮ তে ফোন করে পুলিশের সহায়তা নেওয়া।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ

বাংলাদেশে করোনা ভাইরাস

সর্বমোট

আক্রান্ত
৭৭৯,৭৯৬
সুস্থ
৭২১,৪৩৫
মৃত্যু
১২,১২৪
সূত্র: আইইডিসিআর

সর্বশেষ

আক্রান্ত
সুস্থ
মৃত্যু
স্পন্সর: একতা হোস্ট

Categories