রবিবার, ১৬ মে ২০২১, ০৪:০৪ অপরাহ্ন

প্রায় ২৫ হাজার কর্মীর বিদেশ যাত্রা অনিশ্চয়তায়: আটাব

নিজস্ব প্রতিবেদক / ৫৮ /২০২১
প্রকাশকালঃ মঙ্গলবার, ১৩ এপ্রিল, ২০২১

প্রায় ২৫ হাজার কর্মীর বিদেশ যাত্রা অনিশ্চয়তায়: আটাব

করোনাভাইরাসের কারণে সরকার ঘোষিত এক সপ্তাহের লকডাউন চলাকালে বিদেশগামী কর্মীদের জন্য ফ্লাইট চালু রাখার দাবি জানিয়েছে অ্যাসোসিয়েশন অব ট্রাভেল এজেন্টস অব বাংলাদেশ (আটাব)। তারা বলেন, সরকারের এ ঘোষণার ফলে ২০ থেকে ২৫ হাজার বিদেশগামী বাংলাদেশি কর্মীর বিদেশ যাত্রা অনিশ্চয়তার মধ্যে পড়বে।

মঙ্গলবার রাজধানীর ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে (ডিআরইউ) সাগর রুনি মিলনায়তনে সংবাদ সম্মেলনে আটাব নেতারা এ দাবি জানান।

সংগঠনের পক্ষ থেকে বলা হয়, এক সপ্তাহের জন্যে আন্তর্জাতিক ফ্লাইটে নিষেধাজ্ঞার কারণে অনেক কর্মীর ভিসার মেয়াদ শেষ হয়ে যাবে। সময়মতো না যেতে পারলে নিয়োগকর্তা চাহিদাপত্র বাতিল করতে পারে। বাংলাদেশ থেকে আন্তর্জাতিক ফ্লাইট বন্ধ করে দিলে কর্মী নেওয়া দেশগুলো যখন জানবে, করোনা মহামারির জন্যে ফ্লাইট বন্ধ করা হয়েছে, তখন আন্তর্জাতিক ফ্লাইট চালু করে দেওয়ার পরেও কর্মী নেওয়া দেশগুলো কর্মী নিতে অনীহা পোষণ করতে পারে।

আটাব নেতারা মহামারির এই সময়ে লকডাউন চলাকালীন পরিস্থিতিতে বিদেশগামী কর্মীদের কথা বিবেচনা করে আন্তর্জাতিক ফ্লাইট বন্ধ না করে বরং জনশক্তি পাঠানো এই খাতকে ‘জরুরি সেবা খাত’ হিসেবে ঘোষণা করে তা লকডাউনের আওতামুক্ত রাখার দাবি জানান।

সংবাদ সম্মেলনে আটাবের পক্ষ থেকে দাবিগুলো তুলে সংগঠনের সভাপতি মনসুর আহমেদ কালাম।

আটাব সভাপতি বলেন, এর আগে গত বছর লকডাউনের সময় প্রায় দুই মাস আন্তর্জাতিক ফ্লাইট বন্ধের কারণে হাজারো প্রবাসীর ভিসার মেয়াদ শেষ হয়ে গেছে। তাদের অনেকেই আবার নতুন করে বিদেশ গমনের সব প্রক্রিয়া সম্পন্ন করে শুধু ফ্লাইটের অপেক্ষায় আছেন। এক সপ্তাহের লকডাউনে তারা বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হবে।

আটাবের পক্ষ থেকে বলা হয়, লকডাউনের এই সাত দিনে প্রায় ২০ হাজার শ্রমিক সৌদি আরব, দুবাই, ওমান ও কাতার যাওয়ার উদ্দেশ্যে উচ্চমূল্যে টিকিট কিনেছেন। এর মধ্যে বিভিন্ন এয়ারলাইন্সের টিকিট নন-রিফান্ডেবল।

আটাব নেতারা বলেন, হাজারো নতুন শ্রমিক ভিসা পেয়ে কর্মস্থলে যাওয়ার অপেক্ষায় আছেন। নির্দিষ্ট সময়ে কর্মস্থলে যোগদান করতে না পারলে নিয়োগকর্তা অনেক শ্রমিকের ভিসা বাতিল করবেন। যেহেতু কর্মী নেওয়া দেশগুলো কোনোরকম বিধি-নিষেধ দেয়নি, সেহেতু বাংলাদেশ থেকে বিদেশগামী কর্মী পাঠানোর নিমিত্তে আবশ্যিক স্বাস্থ্যবিধি মেনে আন্তর্জাতিক ফ্লাইট চালু রাখা উচিত। অন্যথায় বাংলাদেশের জনশক্তি রপ্তানি খাতসহ সংশ্লিষ্ট সব খাত শতভাগ ক্ষতিগ্রস্ত হবে।

আটাব নেতারা আরো বলেন, পরিস্থিতি যাই হোক, যতদিন পর্যন্ত কর্মী নেওয়া দেশগুলো, বিশেষ করে সৌদিআরব, সংযুক্ত আরব আমিরাত, কাতার, ওমানসহ মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলো বাংলাদেশের সঙ্গে ফ্লাইট চলাচলে নিষেধাজ্ঞা আরোপ না করবে, অন্তত ততদিন সংশ্লিষ্ট সবার তথা দেশের স্বার্থে বিদেশগামী কর্মীদেরকে লকডাউনের আওতার বাইরে রেখে বিদেশ গমনের সুযোগ করে দেওয়া উচিত।

এসময় সংগঠনের অনান্য নেতারাও উপস্থিত ছিলেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ

বাংলাদেশে করোনা ভাইরাস

সর্বমোট

আক্রান্ত
৭৭৯,৭৯৬
সুস্থ
৭২১,৪৩৫
মৃত্যু
১২,১২৪
সূত্র: আইইডিসিআর

সর্বশেষ

আক্রান্ত
সুস্থ
মৃত্যু
স্পন্সর: একতা হোস্ট

Categories