বৃহস্পতিবার, ০৬ অক্টোবর ২০২২, ০৬:১৯ পূর্বাহ্ন
বিশেষ ঘোষণাঃ
• করোনাভাইরাস প্রতিরোধে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলুন, টিকা নিন। • গুজব নয়, সঠিক সংবাদ জানুন। • দেশের কিছু জেলা, উপজেলা, গুরুত্বপূর্ণ স্থান এবং বিশ্বের কয়েকটি দেশের গুরুত্বপূর্ণ শহরে (খালি থাকা সাপেক্ষে) প্রতিনিধি নিয়োগ দেয়া হবে। • আপনি কি কোন বিশ্ববিদ্যালয়ে 'ফিল্ম ও মিডিয়া, গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা' বিষয়ে পড়ছেন? বাংলাদেশ প্রতিবেদন আপনাকে দিচ্ছে 'ইন্টার্নশিপ'-এর সুযোগ। • আপনিও হতে পারেন সাংবাদিক! চলতি পথে নানা অসঙ্গতি, দুর্নীতি, কারো সফলতা বা যেকোনো ভিন্নধর্মী খবর (ছবি অথবা ভিডিও) পাঠাতে পারেন। • হটলাইনঃ +৮৮০ ১৯ ০৯ ৮৬ ২৬ ১৬ (হোয়াটসঅ্যাপ), • ই-মেইলঃ protibedonbd@gmail.com • গুগল, ফেসবুক ও ইউটিউবে আমাদের পেতে Bangladesh Protibedon লিখে সার্চ দিন।

জুমার খুৎবায় জঙ্গিবাদের কুফল নিয়ে আলোচনার আহ্বান

মোহাম্মদ মনজুরুল হক গাজী
প্রকাশকালঃ বুধবার, ২০ জানুয়ারি, ২০২১

জুমার খুৎবায় জঙ্গিবাদের কুফল নিয়ে আলোচনার আহ্বান

ধর্ম প্রতিমন্ত্রী মো.ফরিদুল হক খান দুলাল এমপি বলেছেন, মসজিদে পবিত্র জুমার নামাজের দিন ইমাম ও খতিবরা খুৎবায় জঙ্গিবাদের কুফল নিয়ে আলোচনা করলে দেশে জঙ্গিবাদ ও সন্ত্রাস থাকবে না।

১৯ জানুয়ারী রাজধানীর আগারগাঁওয়ে ইসলামিক ফাউন্ডেশনের মিলনায়তনে ‘সহিংসতা ও চরমপন্থা বিষয়ে ইসলামিক বিজ্ঞজনদের ভূমিকা’ শীর্ষক সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তব্যে ধর্ম প্রতিমন্ত্রী এ কথা বলেন। ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) কাউন্টার টেররিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম (সিটিটিসি) এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করে।

ধর্ম প্রতিমন্ত্রী আরো বলেন, গ্রাম, গঞ্জ ও শহরে সবাই মসজিদে ইমামের পেছনে দাঁড়িয়ে নামাজ আদায় করেন। মসজিদের ইমাম ও খতিবরা জুমার নামাজের দিন জঙ্গিবাদের কুফল দিকগুলো নিয়ে যদি বয়ান দেন, তাহলে দেশে আর জঙ্গিবাদ থাকবে না।

ইসলামে সন্ত্রাস-জঙ্গিবাদ জায়েজ নেই—বয়ানে তাও তুলে ধরতে হবে। একই সঙ্গে বাল্যবিবাহ ও মাদকের কুফল নিয়ে আলোচনা করতে হবে। সবদিক থেকে এসবের মূল আলোচনার কেন্দ্রস্থল হবে মসজিদ।

অনুষ্ঠানের মূল বক্তা সিটিটিসির প্রধান ও ডিএমপির অতিরিক্ত কমিশনার মো. মনিরুল ইসলাম বলেন, শুধু শক্তি, মামলা-মোকাদ্দমা, জেল-জরিমানা ও ফাঁসি দিয়ে জঙ্গিবাদ পুরোপুরি দমন করা সম্ভব নয়। জঙ্গিবাদ এখন বৈশ্বিক সমস্যা। সাম্প্রতিক দিনগুলোয় ধর্মের অপব্যাখ্যা দিয়ে ধর্মকে ব্যবহার করে কিছুসংখ্যক লোক সন্ত্রাসবাদ ও জঙ্গিবাদ চালিয়ে যাচ্ছে। এতে ধর্মের ক্ষতি হচ্ছে, ইসলামের ক্ষতি হচ্ছে। সারা বিশ্বের মুসলমানরা এই ক্ষতির শিকার হচ্ছেন। সাম্প্রতিক সময়ে যেসব জঙ্গি ধরা পড়েছে, তারা জামায়াতে ইসলামী বা ইসলামী ছাত্রশিবিরের সঙ্গে জড়িত। জঙ্গিনেতা সাইদুর রহমান জেলা জামায়াতের আমির ছিলেন।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত আলেম–ওলামাদের উদ্দেশে এই পুলিশ কর্মকর্তা বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী বিভিন্ন সময় আপনাদের বলেছেন, জঙ্গিবাদ দমনে মসজিদের ইমাম–খতিবদের শক্তিশালী ও কার্যকর ভূমিকা পালনের সুযোগ রয়েছে। কারণ, ধর্মের অপব্যাখ্যা দিয়ে জঙ্গিবাদে আকৃষ্ট করা হচ্ছে। সেই সঠিক ব্যাখ্যাটা আপনারাই দিতে পারেন। এখানে আপনাদের মুখ্য ভূমিকা রয়েছে। শিশুর শিক্ষার জন্য প্রথম দায়িত্ব মা-বাবা ও শিক্ষকের।
এরপর ধর্মীয় শিক্ষা দেওয়ার দায়িত্ব আপনাদের। সে জন্য আপনাদের ভূমিকা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। ইসলাম সম্পর্কে যার গভীর জ্ঞান আছে, সে কখনো জঙ্গিবাদে জড়িত হতে পারে না। আপনারা একসঙ্গে কাজ করলে জঙ্গিবাদের শিকড় উৎপাটন করা সহজ।’

অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য দেন ধর্মসচিব মো. নুরুল ইসলাম। এতে সভাপতিত্ব করেন ইসলামিক ফাউন্ডেশনের মহাপরিচালক মো. আনিস মাহমুদ।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ