বৃহস্পতিবার, ০৬ অক্টোবর ২০২২, ০৮:০৭ পূর্বাহ্ন
বিশেষ ঘোষণাঃ
• করোনাভাইরাস প্রতিরোধে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলুন, টিকা নিন। • গুজব নয়, সঠিক সংবাদ জানুন। • দেশের কিছু জেলা, উপজেলা, গুরুত্বপূর্ণ স্থান এবং বিশ্বের কয়েকটি দেশের গুরুত্বপূর্ণ শহরে (খালি থাকা সাপেক্ষে) প্রতিনিধি নিয়োগ দেয়া হবে। • আপনি কি কোন বিশ্ববিদ্যালয়ে 'ফিল্ম ও মিডিয়া, গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা' বিষয়ে পড়ছেন? বাংলাদেশ প্রতিবেদন আপনাকে দিচ্ছে 'ইন্টার্নশিপ'-এর সুযোগ। • আপনিও হতে পারেন সাংবাদিক! চলতি পথে নানা অসঙ্গতি, দুর্নীতি, কারো সফলতা বা যেকোনো ভিন্নধর্মী খবর (ছবি অথবা ভিডিও) পাঠাতে পারেন। • হটলাইনঃ +৮৮০ ১৯ ০৯ ৮৬ ২৬ ১৬ (হোয়াটসঅ্যাপ), • ই-মেইলঃ protibedonbd@gmail.com • গুগল, ফেসবুক ও ইউটিউবে আমাদের পেতে Bangladesh Protibedon লিখে সার্চ দিন।

করোনায় মারা গেছেন অস্ট্রিয়া আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি

ডেস্ক প্রতিবেদন
প্রকাশকালঃ শুক্রবার, ৬ নভেম্বর, ২০২০

করোনায় মারা গেছেন অস্ট্রিয়া আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি

অস্ট্রিয়া আওয়ামী লীগের অন্যতম সহ-সভাপতি এ কে এম সওকত আলী করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে ভিয়েনার ভিলহেলমিনেন হাসপাতালের চিকিৎসাধীন অবস্থায় আজ স্থানীয় সময় সকাল সাড়ে ১১টায় শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন (ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)। মাত্র ৫৯ বছর বয়সে তিনি পরপারে পারি জমালেন।

সর্ব ইউরোপিয়ান আওয়ামী লীগের সভাপতি এম. নজরুল ইসলাম এক শোক বার্তায় জানান, তাঁর অকালে চলে যাওয়া গভীর বেদনাদায়ক। জগতে কেউ-ই চিরস্থায়ী নয়। আমাদেরও একদিন চলে যেতে হবে। তবু বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনার প্রতি অবিচল সওকত ভাইয়ের এমন চিরবিদায় অপ্রত্যাশিত-অনাকাঙ্ক্ষিত।

২০০৭ সালের ১৬ জুলাই বঙ্গবন্ধু কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনাকে ঢাকায় গ্রেফতার করা হলে ঐদিন ভিয়েনায় স্থানীয় সময় ভোরে নেত্রীর গ্রেফতারের প্রতিবাদ ও মুক্তির দাবিতে যে ক’জনে বিক্ষোভ সমাবেশ করেছিলাম, তারমধ্যে একজন ছিলেন, আমাদের এই সহযোদ্ধা সওকত আলী। এমন বহু কথা, বহু স্মৃতি আজ চোখে ভাসছে।

অস্ট্রিয়া আওয়ামী লীগের বড় পদটিত অধিষ্ঠিত হওয়ার শিক্ষাসহ সব যোগ্যতা তাঁর ছিল। কিন্ত তিনি কখনো বড় পদে যেতে চান নাই। সওকত ভাই ছিলেন, খবই বন্ধুবৎসল এবং অমায়িক। রাজনীতির বাইরেও অস্ট্রিয়ায় বাঙালি কমিউনিটির সর্বস্তরের মানুষের কাছে তাঁর একটা অন্যরকম গ্রহণযোগ্যতা ছিল।

তার স্ত্রী, কন্যা ও পুত্র এই তিনজনকে কোয়ারেন্টাইনে থাকতে বলা হয়েছে। পরিবারের সদস্যদেরকে প্রতিদিন সকাল-সন্ধ্যা দুইবার হাসপাতাল থেকে ডাক্তার ফোন করে সওকত ভাইয়ের অবস্থার আপডেট দিতেন। গত দুইদিন যাবত জানানো হচ্ছিল রোগী একটু একটু ভালোরদিকে। হঠাৎ আজ সকালে ফোন হলো, ‘রোগী একেবার মৃত্যুর মুখে, আপনারা অতি সত্বর হাসপাতাল আসুন।’
সঙ্গে সঙ্গে কন্যা মৌরী ও পুত্র আজমল ছুটে গেলেন হাসপাতাল। ডাক্তার তাদেরকে নিয়ে গেল প্রিয় পিতা সওকত আলীর কাছে। আদরের সন্তানদ্বয়ের উপস্থিতিতে ৫ মিনিটের মধ্যে তিনি পরপারে পারি জমালেন! আজমল ফোনে আমাকে বললো, ‘আঙ্কেল আমার আব্বু চলেগেছেন’ এই বলে সে কান্নায় ভেঙ্গে পড়ে। পাশে থাকা ওর মা এবং বোনের আহাজারি শুনে আমি নিজে কান্না সামলে রাখতে পারছিলাম না।

তাঁর এই অকাল প্রয়াণে ব্যক্তিগতভাবে আমি হারিয়েছি আমার পরম বন্ধু, অকুতোভয় প্রিয় সহযোদ্ধাকে। আমি আজ গভীরভাবে শোকাহত। এ কে এম সওকত আলীর এই অকাল প্রস্থান অস্ট্রিয়া আওয়ামী লীগের জন্য অপূরণীয়।

প্রিয় সওকত ভাইকে পরপারে চিরশান্তিতে রাখুন, তাঁর সহধর্মিনী শিউলী ভাবী, কন্যা মৌরী ও পুত্র আজমলকে এই ভয়াবহ শোক সহ্য করার শক্তি দান করুন, মহান সৃষ্টিকর্তার নিকট এই প্রার্থনা।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ