বৃহস্পতিবার, ০৬ অক্টোবর ২০২২, ০৬:৪২ পূর্বাহ্ন
বিশেষ ঘোষণাঃ
• করোনাভাইরাস প্রতিরোধে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলুন, টিকা নিন। • গুজব নয়, সঠিক সংবাদ জানুন। • দেশের কিছু জেলা, উপজেলা, গুরুত্বপূর্ণ স্থান এবং বিশ্বের কয়েকটি দেশের গুরুত্বপূর্ণ শহরে (খালি থাকা সাপেক্ষে) প্রতিনিধি নিয়োগ দেয়া হবে। • আপনি কি কোন বিশ্ববিদ্যালয়ে 'ফিল্ম ও মিডিয়া, গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা' বিষয়ে পড়ছেন? বাংলাদেশ প্রতিবেদন আপনাকে দিচ্ছে 'ইন্টার্নশিপ'-এর সুযোগ। • আপনিও হতে পারেন সাংবাদিক! চলতি পথে নানা অসঙ্গতি, দুর্নীতি, কারো সফলতা বা যেকোনো ভিন্নধর্মী খবর (ছবি অথবা ভিডিও) পাঠাতে পারেন। • হটলাইনঃ +৮৮০ ১৯ ০৯ ৮৬ ২৬ ১৬ (হোয়াটসঅ্যাপ), • ই-মেইলঃ protibedonbd@gmail.com • গুগল, ফেসবুক ও ইউটিউবে আমাদের পেতে Bangladesh Protibedon লিখে সার্চ দিন।

কে হচ্ছেন ইআরএফের নতুন সভাপতি?

প্রধান প্রতিবেদক
প্রকাশকালঃ বৃহস্পতিবার, ৫ নভেম্বর, ২০২০
শারমীন রিনভী ও জিয়াউর রহমান। ছবিঃ সংগৃহীত

কে হচ্ছেন ইআরএফের নতুন সভাপতি?

অর্থনৈতিক প্রতিবেদকদের শীর্ষ সংগঠন ইকোনমিক রিপোর্টার্স ফোরামের (ইআরএফ) নির্বাচন আজ (৬ নভেম্বর)। সংগঠনের নিজস্ব কার্যালয়ে ভোট গ্রহণ করা হবে বলে জানা গেছে। এবারের নির্বাচনে সভাপতি পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন বাংলাভিশনের এডিটর শারমীন রিনভী ও অর্থসূচকের সম্পাদক জিয়াউর রহমান। আর সাধারণ সম্পাদক পদে এস এম রাশিদুল ইসলাম ইতিমধ্যেই বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন। ফলে সবার নজর এখন সভাপতি পদে- কে হচ্ছেন ইআরএফের নতুন সভাপতি?

এছাড়াও সহ-সভাপতি হিসেবে এম শফিকুল আলম এবং অর্থ সম্পাদক পদে মোঃ রেজাউল হক কৌশিক বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হয়েছেন।

ইতিমধ্যেই নির্বাচন উপলক্ষে উভয় সভাপতি পদপ্রার্থী নিজ নিজ নির্বাচনী প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন। বিজয়ী হলে এগুলো বাস্তবায়ন করার প্রয়াস চালাবেন।

শারমীন রিনভী-এর নির্বাচনী প্রতিশ্রুতিসমূহঃ
আমি শারমীন রিনভী, আসছে ইআরএফ নির্বাচনে সভাপতি প্রার্থী। আপনাদের সকলের সমর্থনে আমি নির্বাচিত হতে পারলে গৌরবময় অতীতকে ধারন করে নতুন সম্ভাবনা রচনায় কিছু পদক্ষেপ নিতে চাই। আমার প্রতিশ্রুতিগুলো নিম্নরূপঃ

১. চাকরি ক্ষেত্রের নিরাপত্তা বৃদ্ধির জন্য দক্ষতা উন্নয়নে সহায়তা প্রদান।

২. ইআরএফ বিজনেস ইনস্টিটিউট সুষ্ঠুভাবে কার্যকর করা।

৩. দেশি, বিদেশি ফেলোশিপ অর্জনে সাব-কমিটি করে সদস্যদের সমর্থন দেয়া।

৪. কল্যাণ তহবিলের অতিরিক্ত জরুরি সহায়তা তহবিল গঠন।

৫. সদস্যদের জন্য গ্রুপ ইন্স্যুরেন্স চালু করা।

৬. অর্থনৈতিক গবেষণা সেল গঠন।

৭. সরকারী ও বেসরকারী প্রতিষ্ঠানের সাথে যৌথ উদ্যোগে সদস্যদের বিশেষ রিপোর্টিং এর সুযোগ তৈরি।

৮. অভিজ্ঞ সদস্যদের সহযোগিতায়, তরুণদের অংশগ্রহণে অর্থনৈতিক সাংবাদিকতার উন্নয়ণ কর্মপরিকল্পনা গ্রহন।

৯. ইআরএফ আবাসন পল্লী গড়ে তোলা।

১০. ক্যান্টিন গড়ে আউট সোর্সিং করে সাবসিডাইজড্ খাবার সরবরাহ করা।

‘এছাড়াও সদস্যদের পক্ষ থেকে আরো নতুন কোন প্রস্তাব এলে আমরা তা সম্মিলিতভাবে বাস্তবায়নের উদ্যোগ নেবো।’

জিয়াউর রহমান-এর নির্বাচনী প্রতিশ্রুতিসমূহঃ
প্রিয় এই সংগঠনকে নতুন উচ্চতায় নিয়ে যাওয়া ও সদস্যদের সর্বোচ্চ কল্যাণ নিশ্চিতের জন্য আগামী দিনে নতুন ও জোরালো কিছু উদ্যোগ নেওয়া প্রয়োজন। উদ্যোগগুলো হচ্ছে-

১. বাংলাদেশ ব্যাংকের সাথে করা সমঝোতা চুক্তির পূর্ণ বাস্তবায়নের লক্ষ্যে ইআরএফ বিজনেস জার্নালিজম ইনস্টিটিউট প্রতিষ্ঠা করা। এই ইনস্টিটিউটের সার্টিফিকেটের গ্রহণযোগ্যতা নিশ্চিতে শীর্ষস্থানীয় সরকারি অথবা বেসরকারি কোনো বিশ্ববিদ্যালয়ের অ্যাফিলিয়েশন নিশ্চিত করা।

২. ইআরএফ সদস্য ও তাদের পরিবারের জন্য সামর্থের মধ্যে সর্বোচ্চ মানের চিকিৎসাসেবা নিশ্চিত করতে বিভিন্ন মানের একাধিক হাসপাতালের সাথে করপোরেট চুক্তি করা, যার আওতায় চিকিৎসা ও হেলথ চেকআপে উল্লেখযোগ্য হারে ডিসকাউন্ট পাওয়া যাবে।

৩. হৃদরোগ, ডায়াবেটিস ও চোখসহ বিভিন্ন বিষয়ে বছরে ন্যুনতম একটি করে ফ্রি হেলথ ক্যাম্পের আয়োজন করা।

৪. গতানুগতিক প্রশিক্ষণের পরিবর্তে সুনির্দিষ্ট বিষয়ে ইনডেপথ প্রশিক্ষণের আয়োজন করা।

৫. ল্যাঙ্গুয়েজ স্কিল ও আইটি স্কিল বাড়ানোর জন্য বিশেষ প্রশিক্ষণের আয়োজন।

৬. উচ্চতর শিক্ষায় কনসেশনের লক্ষ্যে শীর্ষস্থানীয় বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের সাথে সমঝোতা চুক্তি সই। এর আওতায় সদস্যরা বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাড়কৃত টিউশন ফিতে এমবিএ কিংবা অন্য কোনো বিষয়ে ডিগ্রি নিতে পারবেন। এছাড়া সদস্যদের সন্তানের শিক্ষা-সহায়তায় স্টাইপেন্ডের ব্যবস্থা করা।

৭. আন্তর্জাতিক বিভিন্ন গবেষণা প্রতিষ্ঠান ও দাতা সংস্থার সাথে নিবিড় যোগাযোগের মাধ্যমে ইআরএফকে ইন্টারন্যাশনাল এক্সপোজার দেওয়া, যাতে এক্সচেঞ্জ প্রোগ্রাম, ফেলোশিপ, স্কলারশিপ ইত্যাদি সুবিধা যুক্ত করা সম্ভব হয়।

৮. বড় আকারের কল্যাণ তহবিল গঠন করা যাতে সদস্যদের গুরুতর অসুস্থতায় আরও বেশি চিকিৎসা সহায়তা দেওয়া সম্ভব হয়। এই তহবিলের আওতায় ৬০ বছর পূর্ণ হওয়া সদস্যকে এককালীন একটি আর্থিক সহায়তা দেওয়ার স্কিম গ্রহণ করার বিষয় পর্যালোচনা করে দেখা।

‘নতুন নেতৃত্ব উপরের বিষয়গুলো বিবেচনায় রাখবেন বলে আশা করছি। এই নির্বাচনে আমি সভাপতি পদে প্রার্থী। সম্মানিত ইআরএফ সদস্যদের কাছে ভোট, দোয়া ও সহযোগিতা প্রত্যাশা করি।’

এছাড়া যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক পদের জন্য জসিম উদ্দিন ও হাসান আরিফ লড়ছেন। কার্যনির্বাহী সদস্য পদে ছয়জন লড়াছেন। চারজন নির্বাচিত হবেন। প্রতিদ্বন্দ্বীরা হলেন, বদিউল আলম, মোহাম্মদ আজিজুর রহমান রিপন, রহিম শেখ, সিরাজুল ইসলাম কাদির, সুনীতি কুমার বিশ্বাস এবং সৈয়দ শাহনেওয়াজ করিম।

নির্বাচন কমিশনের চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পালন করবেন জাতীয় প্রেসক্লাবের সভাপতি ও দৈনিক যুগান্তরের সম্পাদক সাইফুল আলম।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এই ক্যাটাগরির আরো সংবাদ